ভবানীপুরে ভোটদানের হার নিয়ে উদ্বেগ! সকাল ১ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণের হার কত?

ভবানীপুরে ভোটদানের হার নিয়ে উদ্বেগ! সকাল ১ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণের হার কত?
ভবানীপুরে ভোটদানের হার নিয়ে উদ্বেগ! সকাল ১ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণের হার কত?

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ আজ ভবানীপুরে উপনির্বাচন হচ্ছে। এই কেন্দ্রে তৃণমূলের প্রার্থী খোদ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই এই নির্বাচন স্বাভাবিকভাবেই হাই-ভোল্টেজ নির্বাচন। ভবানীপুর আসন ছাড়াও মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জ এবং জঙ্গিপুর বিধানসভা কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ চলছে। তবে, নজরে ভবানীপুর কেন্দ্র। এই কেন্দ্রে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতিদ্বন্দ্বী বিজেপির প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়াল এবং বাম প্রার্থী শ্রীজীব বিশ্বাস।

উল্লেখ্য, একুশের বিধানসভা নির্বাচনে পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রাম আসনে পরাজিত হন মমতা। সংবিধান অনুযায়ী, সংখ্যাগরিষ্ট দলের হয়ে মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারে বসলেও ছয় মাসের মধ্যে মমতাকে রাজ্যের যেকোনো একটি বিধানসভা আসনে জিতে আসতে হবে।
সেই মর্মেই ভবানীপুর আসনে জয়ী রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় পদত্যাগ করেন। সেই আসন থেকেই লড়াই করার সিদ্ধান্ত নেন তৃণমূল সুপ্রিমো। অন্যদিকে, বিধানসভা নির্বাচনের আগেই প্রার্থীর মৃত্যু হওয়ায় ভোট হয়নি মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জ এবং জঙ্গিপুর বিধানসভা কেন্দ্রে। তাই ওই দুটি কেন্দ্রেও হচ্ছে উপনির্বাচন। ভবানীপুরের উপনির্বাচনকে ঘিরে নিরাপত্তা ব্যাবস্থা আরও জোরদার করা হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে ১৪৪ ধারা জারি হয়েছে ভবানীপুর বিধানসভা এলাকাজুড়ে।

এদিন সকাল থেকেই ভবানীপুরে কম ভোট পড়েছে। কাজেই ফাঁকা বুথ নিয়ে উদ্বেগে তৃণমূল কংগ্রেস। সকাল থেকেই এখানের একাধিক বুথ ফাঁকা। তাই এবার ভবানীপুরবাসীর কাছে ভোট চেয়ে ময়দানে নামলেন তৃণমূল নেতারা। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভোটদানের আর্জি জানালেন ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায়রা। এদিন রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম টুইটারে লেখেন, ভবানীপুরে উন্নয়নের স্বার্থে সবাই ভোট দিতে আসুন। অন্যদিকে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের টুইট, ‘আজ ভবানীপুর-সহ বাংলার তিন কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ। আমাদের ভোটারদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জয়ী করতে হবে।’

জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত অবধি ভবানীপুরে ভোটের যে শতাংশ, তা মাত্র ৭.৫৭ শতাংশ। আবার ভবানীপুরে সকাল ১১ টা পর্যন্ত ভোটদানের হার ২১.৩৭ শতাংশ। অন্যদিকে, জঙ্গিপুরে ৩৬.১১ শতাংশ এবং সামশেরগঞ্জে ভোট পড়েছে ৪০.২৩ শতাংশ। ভবানীপুরে ভোটদানের এই হার যথেষ্টই খারাপ। প্রথমে মনে করা হয়েছিল, আবহাওয়ার কারণে হয়তো ভোটাদের ভোটকেন্দ্রমুখী করা মুশকিল হবে। কিন্তু বৃহস্পতিবার দেখা গেল, রোদ ঝলমলে সকালেও ভোটের লাইনে দাঁড়াতে ভোটারদের মধ্যে উৎসাহের যথেষ্ট অভাব রয়েছে।

এদিন বেলা ১টা অবধি ভবানীপুরে ভোট পড়েছে ৩৫.৯৭ শতাংশ। সামশেরগঞ্জে ভোটের হার ৫৭.১৫ শতাংশ। জঙ্গিপুরে ভোট পড়েছে ৫৩.৭৮ শতাংশ। এদিকে, ভুয়ো ভোটার বিতর্কে উত্তেজনা ছড়ায় খালসা হাইস্কুলে। বিজেপির অভিযোগ, ভুয়ো ভোটার এনে ভোট করাচ্ছে তৃণমূল। পাল্টা শাসকদলের অভিযোগ, ভুয়ো ভোটার এনে অশান্তি ছড়াচ্ছে বিজেপি। ভোটের হার বাড়াতে ও ভোটারদের মনোবল বাড়াতে ভবানীপুর উপনির্বাচনে রাজপথ থেকে অলিগলি কেন্দ্রীয় বাহিনীর রুটমার্চ চলছে।

অন্যদিকে, এদিন রাজ্যের দুই মন্ত্রীর টুইট প্রসঙ্গে বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়াল প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘খুব ভাল। আমিও সেটাই চাই। কিন্তু যারা টুইট করছে, তারা জানে কেন ভোট কম পড়ছে। তাদের পোষা লোকজনকে তো রাস্তায় দেখতে পাচ্ছি না! ওদের কি বিল্ডিংয়ে ঢুকিয়ে দিয়েছে?’ পাশাপাশি তিনি এই দুই মন্ত্রীর বিরুদ্ধে ভবানী পুরের ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগও তুলেছেন। এই কেন্দ্রের ৪ টি কেন্দ্রে রিগিং-এর অভিযোগও এনেছে বিজেপি।