বিমানের ভিতরে সিক্রেট কেবিন! জানেন কি বিমানকর্মীদের বিশ্রামের এই গোপন ঘরের কথা!

বিমানের ভিতরে সিক্রেট কেবিন! জানেন কি বিমানকর্মীদের বিশ্রামের এই গোপন ঘরের কথা!
বিমানের ভিতরে সিক্রেট কেবিন! জানেন কি বিমানকর্মীদের বিশ্রামের এই গোপন ঘরের কথা!

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ বিমানযাত্রার খরচ নেহাত কম নয়, প্রত্যেক যাত্রীকেই পকেট থেকে মোটা টাকা খরচ করে বিমানে বসতে হয় যাত্রার জন্য। তাই তাঁদের সঠিক পরিষেবা দেওয়ার পাশাপাশি যাত্রীদের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যের সবরকম ব্যবস্থা করাটাও বিমানকর্মীদের কর্তব্যের মধ্যেই পড়ে।

আবার ঠিক একইভাবে বিমানকর্মীদের স্বাচ্ছন্দ্যের বিষয়টিও বিবেচ্য। তাঁরাও মানুষ। একসময় তাঁদেরও ক্লান্তি আসাটা স্বাভাবিক। সেই কারণেই তাঁদেরও বিশ্রামের প্রয়োজন। যাতে তাঁরা মাটি থেকে নির্দিষ্ট উচ্চতায়, মাথা ঠাণ্ডা রেখে, যাত্রীদের সবরকম পরিষেবা যথাযথভাবে প্রদান করতে সক্ষম হন। তাই বেশ কিছু বিমানে বিমানকর্মীদের জন্য বরাদ্দ থাকে একটা বিশেষ ঘর। যেখানে তাঁরা কাজের ফাঁকে একটু জিরিয়ে নিতে পারেন, বিশ্রাম নিতে পারেন। আর এই পুরোটাই ঘটে বিমানযাত্রার সময়।

আর এইরকম একটি সিক্রেট বিশ্রাম ঘরের কথা সম্প্রতি প্রকাশ্যে এনেছেন জাখ গ্রিফ নামে এক ব্যক্তি। তিনি নিজের সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেলে এই বিষয়টি তুলে ধরছেন। এই ব্যক্তি নিজেকে ফুল টাইম ট্র্যাভেলারের আখ্যা দিয়েছেন! সেই কারণেই এক বিমানযাত্রার সময়ে তাঁর নজরে পড়ে বিমানে এই ধরনের সিক্রেট রুমের বিষয়টি। জাখ জানিয়েছেন যে, সাধারণত দূরের যাত্রার আন্তর্জাতিক বিমানে এ ধরনের সিক্রেট রুম থাকে।

ভাববেন না এখানেই শেষ, সংশ্লিষ্ট বিমান কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে, সেই সিক্রেট রুম-এর একটা ভিডিও তিনি তুলেছেন। তারপর সেই ভিডিও তিনি আপলোড করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে যে, এ ধরনের সিক্রেট রুম যাত্রীদের জন্য বরাদ্দ জায়গার ঠিক উপরেই থাকে! সেখানে কয়েক ধাপ সিঁড়ি। সেই সিঁড়ি বেয়ে উঠে যাওয়ার পর, আরামদায়ক শয্যা সমৃদ্ধ সিক্রেট রুমের সাজসজ্জা চোখে পড়বে। আবার বিশেষ সময়ের প্রয়োজনের কথা মাথায় রেখে, এখানে কর্মীদের জন্য ছোট ছোট অক্সিজেন সিলিন্ডারের ব্যবস্থাও রয়েছে।

এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসার পরে, স্বাভাবিকভাবেই নেটিজেনরা অবাক হয়েছেন। সকলে সিক্রেট রুমের কথা জানার থেকেও বেশি অবাক হয়েছেন জাখের কাণ্ড দেখে। প্রশ্ন উঠছে, কীভাবে তিনি অনুমতি পেলেন, এভাবে বিমানের এই অংশের ভিডিও করার? এই প্রশ্নের উত্তর জানার জন্যই বেশি কৌতূহলী নেটিজেনরা।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.