মঙ্গলবার, ১৭ মে, ২০২২

"দিলীপ-কুণাল নির্বোধ নন, তাঁদের মন্তব্যকে অর্মাজিত বলেছি": বাবুল সুপ্রিয়

০৬:৩৪ পিএম, আগস্ট ২, ২০২১

দিলীপ ঘোষ ও কুণাল ঘোষ সম্পর্কে তিনি যা বলেছেন তার ভুল ব্যাখ্যা হচ্ছে বলে রব তুললেন বাবুল সুপ্রিয়। তাঁর দাবী, দিলীপ কুণালকে তিনি 'নির্বোধ' বলেননি। বরং তাঁদের মন্তব্যকে 'অমার্জিত' বলেছেন। এ নিয়ে এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় জোর আলোচনা। বিষয়টি কী?

আসলে সম্প্রতি ফেসবুকে রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা করে পোস্ট দেন বাবুল সুপ্রিয়। পাশাপাশি এও জানান যে তিনি সাংসদ পদ থেকেও ইস্তফা দিচ্ছেন। এ নিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতিকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, "আমি কারোর ফেসবুক, ট্যুইটার কিছু দেখি না। কে কোথায় যাচ্ছেন, কী করছেন, সেটা আমি কী করে বলব! এটা ওঁর ব্যক্তিগত ব্যাপার। কে কখন রাজনীতি করবে, কখন ছাড়বে, এটা যার যার ব্যক্তিগত অধিকার।"

পাশাপাশি দিলীপ আরও বলেন, "উনি কি ইস্তফা দিয়ে দিয়েছেন? মাসির গোঁফ বেরোলো তবে মেসো না মাসি বলব, আগে গোঁফ তো বেরোক। উনি এখনও লোকসভায় আছেন। ইস্তফা দিলে বলবেন। এরকম খবর রোজ আসে। উনি এখনও আমাদের কর্মী।" অন্যদিকে, ফেসবুকে বাবুলের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষও। তাঁর কটাক্ষ, "বাবুলের ঘোষণা শোলেতে জলের ট্যাঙ্কে উঠে ধর্মেন্দ্রর আত্মহত্যার হুমকির মতো।" অর্থাৎ তিনি বলতে চেয়েছেন বিষয়টি আদতে ভুয়ো।

এরপরই মুখ খোলেন বাবুল সুপ্রিয়। দুই দলের দুই নেতাকে নিশানাও করে তাঁদের বক্তব্যকে 'uncouth'ও বলেন। এ নিয়েই জোর শোরগোল পড়ে যায়। তার জেরে প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর বক্তব্য, "Uncouth মানে নির্বোধ নয়, অমার্জিত। দিলীপ ঘোষ ও কুণাল ঘোষ নন, ওঁদের মন্তব্যকে ‘Uncouth’ অর্থাৎ অমার্জিত বলেছি। এখনও বলছি সে ভাষা না ব্যবহার করাই বাঞ্ছনীয়।" অন্যদিকে, বাবুলের রাজনীতি ছাড়ার পর তাঁকে নিয়ে আজ বৈঠকে বসতে চলেছে বিজেপি নেতৃত্ব। জানা গিয়েছে, সোমবার সন্ধ্যে নাগাদ আসানসোলের সাংসদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা।