‘মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন ফ্রিতে ভ্যাকসিন দেবেন। কী হল সেই প্রতিশ্রুতির?’ কটাক্ষ জয়প্রকাশের

‘মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন ফ্রিতে ভ্যাকসিন দেবেন। কী হল সেই প্রতিশ্রুতির?’ কটাক্ষ জয়প্রকাশের
‘মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন ফ্রিতে ভ্যাকসিন দেবেন। কী হল সেই প্রতিশ্রুতির?’ কটাক্ষ জয়প্রকাশের

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাজ্যে জোর কদমে চলছে করোনা টিকাকরণ কর্মসূচি। এর মধ্যে আজই রাজ্যে এসে পৌঁছেছে কেন্দ্রের পাঠানো করোনার টিকা কোভ্যাকসিনের ৮০ হাজার ডোজ।

শুক্রবার সকাল পৌনে ৮ টা নাগাদ হায়দ্রাবাদ থেকে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানে কলকাতায় এসে পৌঁছয় ভ্যাকসিন। উল্লেখ্য, এখনও রাজ্যে টিকা নিয়েছেন ১ কোটি ৫৪ লক্ষের বেশি মানুষ। ইতিমধ্যেই কলকাতায় পা রেখেছে রাশিয়া নির্মিত করোনা ভ্যাকসিন স্পুটনিক ভি-ও। জানা গিয়েছে, আগামী সোমবার থেকে স্পুটনিক ভি-এর টিকাকরণ শুরু হবে। কোভিশিল্ড ও কোভ্যাকসিনের পর, তৃতীয় টিকা হিসেবে রাজ্যে পৌঁছেছে রাশিয়ার স্পুটনিক ভি।

এদিকে এই পরিস্থিতিতে ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে রাজ্য বিজেপির নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার দাবি করেছেন যে, রাজ্য সরকার যে ভ্যাকসিন দিচ্ছে তার বেশিরভাগটাই কেন্দ্রের দেওয়া। এর পাশাপাশি তিনি এও প্রশ্ন তুলেছেন যে, মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেছিলেন, ফ্রিতে রাজ্যবাসীকে করোনার ভ্যাকসিন দেবেন। সেই প্রতিশ্রুতির কী হল?

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার বণিকসভার বৈঠকে টিকাকরণ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘আপনারা ইতিমধ্যেই দেখেছেন ভ্যাকসিনের জন্য যত টাকা ছিল, সবটাই খরচ করেছি। এক- একটা ভ্যাকসিন ৬০০ থেকে ১২০০ টাকা নাগছে। আমরা প্রায় ১.৪৪ কোটি লোককে ইতিমধ্যেই ভ্যাকসিন দিয়েছি। শিশুদের বাদ দিয়ে, সাড়ে সাত কোটি লোককে ভ্যাকসিন দিতে হবে। বিশেষ করে সুপার স্প্রেডার যেমন শ্রমিক, হকার, মৎস্য বিক্রেতা, সবজি বিক্রেতা, গাড়ির চালকদের প্রতিদিন নিখরচায় টিকা দিচ্ছি।’

এদিন এই প্রসঙ্গে জয়প্রকাশ মজুমদার দাবি করেন, রাজ্য সরকার যে দেড় কোটি ভ্যাকসিন দিয়েছে, তার মধ্যে ১ কোটি ২৫ লাখ ভ্যাকসিনের ডোজই কেন্দ্র সরকারের দেওয়া। ওইসব ভ্যাকসিন বিনামূল্যে এসেছে। এখনও রাজ্য সরকারের কাছে ভ্যাকসিন জমা রয়েছে। বিজেপি নেতার দাবি, কেন সেই সব ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে না।

তিনি আরও দাবি করেছেন যে, ‘ভোটের আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, বিনামূল্যে রাজ্যবাসীকে করোনার টিকা দেবেন। কিন্তু রাজ্য সরকার মাত্র ২৭ লাখ ভ্যাকসিন দিয়েছে নিজের টাকায়, তারপরেই বলতে শুরু করেছেন, আর পারছি না পয়সা নেই!’ জয়প্রকাশ মজুমদারের দাবি, রাজ্য সরকারের কেনা ভ্যাকসিনও বিনামূল্যে দেওয়া হচ্ছে না। উল্টে তিনি দাবি করেছেন, সরকারি ভ্যাকসিন বিক্রি করা হচ্ছে।

তিনি এও দাবি করেছেন যে, কর্পোরেশনে গেলে ভ্যাকসিন বাবদ ১২০০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, বিনামূল্য ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা বলেও এখন টাকা নেওয়া হচ্ছে কেন? তিনি অভিযোগের সুরে জানিয়েছেন, ভ্যাকসিনের জন্য নেওয়া দামের কোনও রসিদও দেওয়া হচ্ছে না। পাশাপাশি, রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি কর্মী-সমর্থকদেরও কোভিড ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে না।

বিজেপি নেতার কোথায়, ‘মুখ্যমন্ত্রী কী মনে করছেন? একটা গ্রামে কিছু লোককে ভ্যাকসিন দিলাম, আর কিছু লোককে দিলাম না। তাহলে কি ভ্যাকসিন নেওয়া মানুষজন বাঁচতে পারবেন?’