ভবানীপুরে উপনির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিজেপির মুখ কে? দিল্লিতে ৬ জনের নাম পাঠাল রাজ্য বিজেপি

ভবানীপুরে উপনির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিজেপির মুখ কে? দিল্লিতে ৬ জনের নাম পাঠাল রাজ্য বিজেপি
ভবানীপুরে উপনির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিজেপির মুখ কে? দিল্লিতে ৬ জনের নাম পাঠাল রাজ্য বিজেপি/ প্রতীকী ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ চলতি মাসের ৩০ সেপ্টেম্বর রয়েছে ভবানীপুর কেন্দ্রে উপনির্বাচন। এই কেন্দ্রের তৃণমূলের প্রার্থী খোদ তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই স্বাভাবিকভাবেই এটাই এখন বঙ্গ রাজনীতির সবথেকে আলোচিত বিষয়।

বাংলার একুশের নির্বাচনে নন্দীগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপির শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দল তৃতীয়বারের জন্য বিপুল সংখ্যা গরিষ্ঠতায় জিতলেও, এই কেন্দ্রে পরাজিত হন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাও তিনি মুখ্যমন্ত্রীর আসনে বসেছেন। তবে, এই মুহূর্তে তাঁকে নিজের মুখ্যমন্ত্রীর আসন ধরে রাখতে হলে, এই ভবানীপুর কেন্দ্রের উপনির্বাচনে জিতে আসতে হবে।

তবে, রাজনৈতিক মহলের একাংশের মতে, এই আসনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জয় একপ্রকার নিশ্চিত। উল্টে এই আসনে বিজেপির লড়াই কার্যত সম্মানের লড়াই হতে চলেছে। ভবানীপুরের উপনির্বাচনে তাই সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে চাইছে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব। দিন দুই আগেই বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও এমনটাই দাবি করেছিলেন। তবে, বিজেপির রাজ্য সভাপতি মুখে যাই বলুন না কেন, বাস্তবে ভবানীপুর কেন্দ্রে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতিপক্ষ হিসেবে প্রার্থী খুঁজতে গিয়ে কার্যত নাজেহাল অবস্থা রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের। এদিন দিলীপ ঘোষ নিজেই স্বীকার করে নিয়েছেন, ভবানীপুরে প্রার্থী হওয়ার জন্য অনেককে অনুরোধ করা হলেও কেউ সাড়া দিচ্ছেন না৷ এই কেন্দ্রে প্রার্থী হিসেবে কাকে নির্বাচন করা হবে, সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি রাজ্য বিজেপি। তবে, এও জানা গিয়েছে যে, ইতিমধ্যেই ৬ জনের নামের একটি তালিকা পাঠানো হয়েছে দিল্লিতে। তাঁদের মধ্যেই একটি নামে শিলমোহর দেবে শীর্ষ নেতৃত্ব।

জানা গিয়েছে, রাজ্য বিজেপি ভবানীপুরের প্রার্থী হিসেবে যাঁদের বেছে নিয়েছেন, সেই তালিকায় রয়েছেন অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ, তথাগত রায়, অনির্বাণ গঙ্গোপাধ্যায়, আইনজীবী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়াল, প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায় ও বিশ্বজিৎ সরকার। উল্লেখ্য, কাঁকুড়গাছিতে নিহত বিজেপি নেতা অভিজিৎ সরকারের দাদা এই বিশ্বজিৎ সরকার। বিজেপি নেতা তথাগত রায় আগেই টুইটারে মৃত কর্মীদের পরিবারের সদস্যদের প্রার্থী করার অনুরোধ জানিয়েছিলেন। কারণ হিসেবে বলা হয়েছিল, মৃত বিজেপি কর্মীদের পরিবারের সদস্যরাই তাঁদের উপর হওয়া অত্যাচার মানুষকে জানাক। এসবের মাঝে তালিকায় বিশ্বজিৎ সরকারের নাম যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শক্ত গড় ভবানীপুর। তাই সেই আসনে প্রার্থী নির্বাচনের ক্ষেত্রে বিজেপি যে একটু বেশিই সাবধানী, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহই নেই। আবার এও শোনা যাচ্ছে, ওই আসনে লড়াইয়ে করতে রাজি নন অনেকেই। তাই সব দিক থেকে ভবানীপুর আসনের জন্য প্রার্থী নিয়ে খানিকটা চাপে এই মুহূর্তে রাজ্য বিজেপি।

তবে, মঙ্গলবার রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন, বুধবারই ঘোষণা করা হবে ভবানীপুরের প্রার্থীর নাম। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে এই আসনে মুখোমুখি লড়াইয়ে কে নামবেন, তা তাই আগামিকালই জানা যাবে। এদিকে, এসব টানাপোড়েনের মাঝেই আজ অর্থাৎ মঙ্গলবার দিল্লিতে গিয়েছেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি, এমনটাই জানা গিয়েছে।