ভ্যাকসিনেও GST বসানোর পক্ষে সওয়াল দিলীপ ঘোষের! বিজেপির রাজ্য সভাপতির কথায় বিতর্ক

ভ্যাকসিনেও GST বসানোর পক্ষে সওয়াল দিলীপ ঘোষের! বিজেপির রাজ্য সভাপতির কথায় বিতর্ক
ভ্যাকসিনেও GST বসানোর পক্ষে সওয়াল দিলীপ ঘোষের! বিজেপির রাজ্য সভাপতির কথায় বিতর্ক

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ বিভিন্ন সময়ে নানা মন্তব্যের কারণে বিতর্কে জড়িয়েছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এবার করোনা ভ্যাকসিনের উপর জিএসটি বসানোর কথা বলেছেন দিলীপ ঘোষ। আর তা নিয়ে ইতিমধ্যেই বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। ভ্যাকসিনে জিএসটি বসানোর পক্ষে সওয়াল করেই থেমে যাননি বিজেপির রাজ্য সভাপতি। করোনা মোকাবিলায় রাজ্যের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন দিলীপ ঘোষ।

বাংলার বিধানসভা নির্বাচনে পরাজয় হয়েছে বিজেপির। এরপর থেকে কিছুটা চুপচাপই ছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। তবে, এবার রাজ্যে করোনার টিকা নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে, সরব হলেন দিলীপ ঘোষ। রাজ্যে টিকার প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে ফের সমালোচনার মুখে পড়লেন তিনি।

শুক্রবার শ্রীরামপুর সাংগঠনিক জেলার বিজেপি কার্যালয়ে বৈঠক করেন দিলীপ ঘোষ। এরপর একটি সাংবাদিক সম্মেলন করেন তিনি। সেখানেই করোনা ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে বলেন, ‘সব জিনিসের উপরই GST বসছে। তাহলে ভ্যাকসিনে কেন নয়?’ তিনি এও অভিযোগ করেন যে, ‘কেন্দ্র বিনামূল্যে ভ্যাকসিন পাঠাচ্ছে কিন্তু তা রাজ্যে ব্ল্যাক মার্কেটিং হচ্ছে। ভ্যাকসিন নিয়ে শ্বেতপত্র প্রকাশ করা উচিত রাজ্যের। বিনামূল্যে পাওয়া ভ্যাকসিন বিক্রি হচ্ছে কীভাবে? কেন কালোবাজারি হচ্ছে, তা দেখতে হবে।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরেই করোনা ভ্যাকসিনে কর বসানো নিয়ে, টানাপোড়েন চলছে। সম্প্রতি করোনা ভ্যাকসিন এবং এই চিকিৎসার প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের উপর থেকে কর তুলে নেওয়া হবে কিনা, তা নিয়েও আলোচনা হয়েছে GST কাউন্সিলে। যদিও এখনও এই বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। তবে, ভ্যাকসিনের উপর থেকে জিএসটি প্রত্যাহারের দাবি উঠেছে বিভিন্ন রাজ্যের পক্ষ থেকে। এছাড়া অক্সিজেন, রেমডেসিভিরের মতো ওষুধও জিএসটি তালিকার বাইরে রাখার পক্ষে সওয়াল করেছেন অনেকে। এখনও তা নিয়ে চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

এদিকে, চলতি মাসের ৮ তারিখ জিএসটি কাউন্সিলের বৈঠক রয়েছে। ওই বৈঠকে এই বিষয়ে গুরুত্বপূ্র্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। পুরোপুরি কর প্রত্যাহার না হলেও, এসব প্রয়োজনীয় ওষুধের উপর করের হার কমানো হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

এই পরিস্থিতিতে বিজেপির রাজ্য সভাপতির এই মন্তব্যে তীব্র বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে বিভিন্ন মহলে। রাজ্যের শাসকদল তৃণমূলও এদিন বিজেপির রাজ্য সভাপতির এই মন্তব্যে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি। তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দু শেখর রায় বলেন, ‘টিকা নিয়ে যারা এমন কথা বলতে পারেন, তাঁরা উদ্ভট মস্তিস্কের মানুষ।’

এদিন টিকা ছাড়াও বাংলায় ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়েও মন্তব্য করেছেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, ‘এখনও আমাদের বহু কর্মী ঘরছাড়া। রাজ্যকে জানিয়েছিলাম কোনও লাভ হয়নি। থানায় গেলে, বলছে ৫ বছর মার খেতে হবে। এভাবে চলতে পারে না।’