অবিশ্বাস্য! ১২ তলা থেকে গড়িয়ে পড়া ২ বছরের ছোট্ট শিশুকন্যার প্রাণ বাঁচালেন ডেলিভারি ম্যান! দেখুন সেই ভিডিও

অবিশ্বাস্য! ১২ তলা থেকে গড়িয়ে পড়া ২ বছরের ছোট্ট শিশুকন্যার প্রাণ বাঁচালেন ডেলিভারি ম্যান! দেখুন সেই ভিডিও / Image Source- Screengrab from Video Tweeted By @Unicanal
অবিশ্বাস্য! ১২ তলা থেকে গড়িয়ে পড়া ২ বছরের ছোট্ট শিশুকন্যার প্রাণ বাঁচালেন ডেলিভারি ম্যান! দেখুন সেই ভিডিও / Image Source- Screengrab from Video Tweeted By @Unicanal

সিনেমাতে আমরা প্রায়ই ‘সুপারহিরো’দের দেখা পাই। কিন্তু বাস্তব জীবনে কজনের দেখা মেলে? সম্প্রতি বাস্তবেও দেখা মিলল এমন এক সুপারহিরোর। তবে তিনি রক্ত-মাংসের এক মানুষই বটে! রাস্তার ধারে এক বাসভবনের ১২ তলার বারান্দা থেকে গড়িয়ে পড়ল ২ বছরের ছোট্ট এক শিশু কন্যা। সঙ্গে সঙ্গেই তাকে প্রাণে বাঁচালেন এক ডেলিভারি ম্যান। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে এমনই এক ভিডিও। তারপরই ডেলিভারি ম্যানটির প্রশংসায় পঞ্চমুখ নেটজনতা। শিশুটির প্রাণ বাঁচানোর জন্য তাঁকে সাধুবাদও জানানো হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটে, গত রবিবার, ভিয়েতনামে। সেখানে এনগুইন এনগোক মানহ নামে এক ডেলিভারি ম্যান, হানয়ি (Hanoi)-তে একটি প্যাকেজ সরবরাহের জন্য তাঁর ট্রাকে বসে অপেক্ষা করছিলেন। হঠাৎই তিনি লক্ষ্য করেন বছর দুয়েকের ছোট্ট এক শিশু নিকটবর্তী একটি বাসভবনের ১২ তলা বারান্দার কিনারায় ঝুলে রয়েছে। শিশুটি তার মায়ের হাত থেকে পড়ে গিয়েছে। যা দেখে চিৎকার-চেঁচামেচি শুরু করেছেন তার মা।। এনগুইন তৎক্ষনাৎ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এরপর বাসভবনটির নীচের তলার টাইলসের ছাদে উঠে দাঁড়ান। ভারসাম্য হারিয়ে শিশুটি নীচের নীচে পড়ে যাওয়ার সময়ই এনগুইন তাকে বাঁচাতে সক্ষম হন।

বাচ্চাটিকে বাঁচানোর পর দেখা যায় তার মুখ থেকে রক্ত ​​বের হচ্ছে। তাকে কাছেই ন্যাশনাল চিলড্রেনস হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় এবং চিকিৎসার বন্দোবস্তও করা হয়। শিশুটিকে বাঁচানোর সময় এনগুইনও সামান্য আঘাত পেয়েছিলেন। তাঁরও যথাযথ চিকিৎসা করা হয়।

শিশুটিকে বাঁচানোর ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পরই, ডেলিভারি ম্যানটির প্রশংসায় মেতে উঠেছেন নেটদুনিয়ার বাসিন্দারা। ইতিমধ্যেই সেটির ৫ লক্ষ ভিউও হয়ে গিয়েছে। এনগুইনের এই মানবিক উদ্যোগকে সাধুবাদও জানিয়েছেন সকলে। এই প্রসঙ্গে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমকে এনগুইন জানিয়েছেন, “ঘটনাটি যখন ঘটেছিল তখন আমি খুব বেশি ভাবিনি। বাচ্চাটিকে দেখে তাৎক্ষণিকভাবে আমার মেয়ের কথাই মনে পড়ে যায়। তাই আমি তাড়াতাড়ি তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করি। এক মিনিটের মধ্যেই সবকিছু ঘটেছিল। জানি না আমি কী ভাবে তাড়াতাড়ি ছাদে ওঠে এই কাজটি করতে সক্ষম হলাম। আমি এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না যে আমি বাচ্চা মেয়েটির জীবন রক্ষা করেছি।”

দেখুন ভিডিওটি-

 

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.