৩৭-এ পা সুনীল ছেত্রীর! জন্মদিনে রইল ভারতীয় ‘সুপারস্টার’ ফুটবল অধিনায়কের ৫ অজানা কাহিনী

৩৭-এ পা সুনীল ছেত্রীর! জন্মদিনে রইল ভারতীয় 'সুপারস্টার' ফুটবল অধিনায়কের ৫ অজানা কাহিনী
৩৭-এ পা সুনীল ছেত্রীর! জন্মদিনে রইল ভারতীয় 'সুপারস্টার' ফুটবল অধিনায়কের ৫ অজানা কাহিনী

আজ, মঙ্গলবার ৩৭-এ পা দিলেন ভারতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী। ১৯৮৪ সালের ৩ অগাস্ট তেলেঙ্গানায় জন্ম নেওয়া ছেত্রী ভারতীয় ফুটবলের প্রায় সমার্থক। ২০০৭ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক ফুটবলে অভিষেক এই তারকা ফুটবলারের। এরপর নানা ঘাত-প্রতিঘাত ও কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে বর্তমানে ফুটবল ‘সুপারস্টার’ সুনীল। দেশের হয়ে খেলার পাশাপাশি বাংলার দুই প্রবাদপ্রতিম ক্লাব ইস্টবেঙ্গল ও মোহনবাগানেও খেলার নজির রয়েছে তাঁর।

আন্তজার্তিক মঞ্চে দেশের জার্সি গায়ে ইতিমধ্যেই ৭৪টি গোল করে ফেলেছেন ছেত্রী। বর্তমানে আন্তর্জাতিক সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় তৃতীয় স্থানে সুনীল৷ তাঁর সামনে শুধু রয়েছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো এবং লিওনেল মেসি। আজ সেই ভারতীয় আইকনের জন্মদিনে সোশ্যাল মিডিয়া ভরে উঠেছে অসংখ্য শুভেচ্ছা বার্তায়৷ আর আজকের দিনেই জেনে নেওয়া যাক ভারতীয় ফুটবলের এই মহাতারকার জীবনের অজানা ৫ কাহিনী…

৩৭-এ পা সুনীল ছেত্রীর! জন্মদিনে রইল ভারতীয় 'সুপারস্টার' ফুটবল অধিনায়কের ৫ অজানা কাহিনী
৩৭-এ পা সুনীল ছেত্রীর! জন্মদিনে রইল ভারতীয় ‘সুপারস্টার’ ফুটবল অধিনায়কের ৫ অজানা কাহিনী

১. সুনীল ছেত্রীর ফুটবল দক্ষতার পুরোটাই উত্তরাধিকার সূত্রে পরিবার থেকে পাওয়া। মা সুশীলা ছেত্রী এবং তাঁর যমজ বোন, আন্তর্জাতিক ফুটবলার ছিলেন। নেপালের জাতীয় ফুটবল দলের প্রতিনিধিত্বও করেছিলেন তাঁরা।

২. সুনীল ছেত্রীর বাবা ছিলেন সেনাবাহিনীতে এবং তাই তিনি ভারতের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে বেড়াতে হতো ছেত্রীর পরিবারকে। গ্যাংটকের স্কুল থেকে পড়াশোনা শুরুর পর দিল্লির আর্মি পাবলিক স্কুলে পড়াশোনা চালিয়ে যান সুনীল। কলকাতায় থেকেও পড়াশোনা করেছেন তিনি৷ পরে ফুটবলে নিজের ভবিষ্যৎ গড়ার আশায় পড়াশোনা ছেড়ে দেন ছেত্রী।

৩. ২০১২ সালে পর্তুগালের ক্লাব স্পোর্টিং লিসবনের সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন সুনীল ছেত্রী। এই প্রসঙ্গে একটি সাক্ষাৎকারে ছেত্রী জানিয়েছিলেন, সেই সময় লিসবনের তৎকালীন প্রধান কোচ তাঁর যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন এবং তাঁকে A দল থেকে B দলে পাঠাতে চেয়েছিলেন। তিনি ৯ মাস দলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন কিন্তু শুধুমাত্র ৫টি ম্যাচেই অংশ নিতে পেরেছিলেন। সুনীল আরও জানিয়েছিলেন, ২০১০ সালে আমেরিকার কানসাস সিটি উইজার্ডেরও অংশ ছিলেন তিনি। যদিও এক বছরের মধ্যেই ভারতে ফিরে আসেন।

৪. সুনীল ছেত্রীই প্রথম ভারতীয় ফুটবলার যিনি ভারতের হয়ে ৫০ গোল করেছেন। তিনিই প্রথম যিনি সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পেয়েছেন ৬ বার। ২০০৭ সালে প্রথম এই সম্মান পান ছেত্রী। এরপর ২০১১, ২০১৩, ২০১৪, ২০১৭ এবং ২০১৮-১৯-এ এই কৃতিত্বের নজির রয়েছে তাঁর।

৫. সুনীল ছেত্রী তাঁর আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে এখনও পর্যন্ত ১১৮ ম্যাচে ৭৪টি গোল করেছেন। ম্যাচ প্রতি তাঁর গোলের গড় ০.৬৩। যা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো এবং লিওনেল মেসির চেয়েও উন্নত। রোনাল্ডোর ম্যাচ প্রতি গোলের গড় ০.৬১ এবং মেসির ম্যাচ প্রতি গোলের গড় ০.৫। আন্তর্জাতিক গোলের সংখ্যার দিক থেকে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন সুনীল ছেত্রী। রোনাল্ডো ও মেসির ঠিক পরেই।