ভিন্ন যাতে বিয়ে করার ‘অপরাধ’! শিক্ষা দিতে নিজের মেয়েকে ধর্ষণ করে খুন করল বাবা

ভিন্ন যাতে বিয়ে করার ‘অপরাধ’! শিক্ষা দিতে নিজের মেয়েকে ধর্ষণ করে খুন করল বাবা
ভিন্ন যাতে বিয়ে করার ‘অপরাধ’! শিক্ষা দিতে নিজের মেয়েকে ধর্ষণ করে খুন করল বাবা / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ মেয়ে চূড়ান্ত অপরাধ করেছে, যার কোনও ক্ষমা নেই। শুধুই শাস্তি প্রাপ্য। চরম শাস্তি, কিন্তু কী সেই অপরাধ? মেয়ে বাড়ির অমতে, ভিন্ন জাতের ছেলেকে ভালবেসে বিয়ে করেছিল। এইটুকুই। সে ভালবাসা, মানবিকতার উর্ধ্বে উঠে ধর্ম-জাত এসবকে মান্যতা দেয়নি। আর তাই কাল হল।

এই ধৃষ্টতার শাস্তি স্বরূপ নিজের মেয়েকে ধর্ষণ করে খুন করল বাবা। এমনই পাশবিক এবং মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের রতিবাদে। ভোপালের এই শহরে রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এমন ঘটনায়। এদিকে ইতিমধ্যেই অভিযুক্ত বাবাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জানা গিয়েছে, জিজ্ঞাসাবাদ করার সময় নিজের অপরাধ স্বীকার করে নিয়েছে অভিযুক্ত বাবা।

দিন দুই আগেই সামাসগড়ের এক জঙ্গলে মিলেছিল ওই তরুণী ও তাঁর ৮ মাসের শিশুসন্তানের মৃতদেহ। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে তরুণীর পরিচয়। এরপর তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে যে, মেয়ের বিয়ে নিয়ে তাঁর পরিবার মোটেও খুশি ছিল না। এরপরই পুলিশের মনে সন্দেহ দানা বাঁধে। অভিজুক্তকে জেরা করা শুরু করতেই চাপে পড়ে, সে নিজের দোষ স্বীকার করে নেয়। সে জানায় মেয়েকে ধর্ষণ করে খুন করেছে সে।

জানা গিয়েছে, বাড়ির অমতে বিয়ে করেছিলেন রতিবাদের ওই মৃতা তরুণী।  এদিকে, ভিন্ন যাতে বিয়ে করার জন্য তাঁর পরিবারকে প্রতিদিন প্রতিবেশীদের  গঞ্জনা সহ্য করতে হত।  এই নিয়েই বচসা শুরু হয়। এর মধ্যেই অসুখে ভুগে মারা যায় ওই তরুণীর শিশুপুত্র। সমসগড়ের জঙ্গলে দেহটি সমাধিস্থ করতে নিয়ে যান ওই তরুণী। তাঁর সঙ্গে ছিল তার বাবাও। জঙ্গলের মধ্যেই ফের উঠে আসে তাঁর বিয়ের প্রসঙ্গ। তার থেকেই শুরু হয় প্রবল তর্কাতর্কি। এরপরই তরুণীকে ধর্ষণ করে খুন করে সেখান থেকে পালিয়ে যায় ৫৫ বছরের ওই প্রৌঢ়।

জানা গিয়েছে, দিওয়ালির সময় নিজের বড়দিদির বাড়িতে এসেছিলেন ওই তরুণী। সেখানেই তাঁর শিশুপুত্র মারা যায়। এরপর তাঁর দিদিই খবর দেন বাবাকে। কিন্তু কেউই ঘুণাক্ষরেও কল্পনা করতে পারেননি, শেষ পর্যন্ত এমন এক ঘৃণ্য অপরাধ করতে পারে ওই প্রৌঢ়। পরে পুলিশ তরুণীর ছিন্নভিন্ন মৃতদেহ উদ্ধার করতেই ধীরে ধীরে পুরো বিষয়টি পরিষ্কার হয়। অভিযুক্ত অপরাধ কবুল করেছে। ওই প্রৌঢ়ের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০২ ও ৩৭৬ ধারায় মামলা রুজু করেছে।