দেশ অক্সিজেন সংকটে বিপর্যস্ত! সেই মুহূর্তে ২ গাছ কাটায়, ১ কোটি ২১ লাখ টাকা জরিমানার নির্দেশ!

দেশ অক্সিজেন সংকটে বিপর্যস্ত! সেই মুহূর্তে ২ গাছ কাটায়, ১ কোটি ২১ লাখ টাকা জরিমানার নির্দেশ!
দেশ অক্সিজেন সংকটে বিপর্যস্ত! সেই মুহূর্তে ২ গাছ কাটায়, ১ কোটি ২১ লাখ টাকা জরিমানার নির্দেশ! / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ  দেশব্যাপী ঝড়ের গতিতে বাড়ছে করোনা। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত গোটা দেশ। সামান্য অক্সিজেনের অভাবে, প্রতিদিন বহু মানুষ মারা যাচ্ছেন। এই পরিস্থিতিতে জীবনদায়ী এই অক্সিজেনের গুরুত্ব বোঝাতে, বড় পদক্ষেপ গ্রহণ করে নজির সৃষ্টি করলেন মধ্যপ্রদেশের বন দফতরের এক অফিসার।

দুটি গাছ কাটায় জঙ্গল মাফিয়া দলের এক সদস্যকে ওই অফিসার ১ কোটি ২১ লক্ষ টাকা জরিমানা করলেন শাস্তিস্বরূপ। ওই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে দুটি সেগুন গাছ কাটার অভিযোগ রয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের রাইসেন জেলার ভামোরি ফরেস্ট রেঞ্জে। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এই বছর ৫ জানুয়ারি ওই জঙ্গলে গাছ কাটে মাফিয়ারা। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে, ঘটনাস্থলে যান বনকর্মীরা। এরপর স্থানীয়দের কাছে তাঁরা জানতে পারেন যে, বছর তিরিশে ছোটে লাল ভিলালা এই কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিল।  তবে, সেই সময় তাকে ধরতে পারেননি বন দফতরের কর্মীরা। কিন্তু সেই সময় ছোটে লাল পালিয়ে গেলেও, চলতি মাসের ২৬ তারিখ বন রক্ষীদের হাতে ধরা পড়ে যায় ছোটে লাল।

গাছ কাটার অভিযোগে এরপর তাঁকে আইনের মুখোমুখি হতে হয়। সেখানে ভামোরি ফরেস্ট রেঞ্জার মহেন্দ্র সিং ছোটে লালের উপর ১ কোটি ২১ লক্ষ টাকার জরিমানা বসান। মহেন্দ্র সিং জানিয়েছেন, এই টাকার পরিমাণ তিনি বৈজ্ঞানিক ভিত্তিতে করেছেন। দু’টি সেগুন গাছ সারা জীবনে যা অক্সিজেন দিত, তার পরিমাণ এবং দাম হিসাব করেই এই জরিমানা করা হয়েছে। গাছগুলির গড় আয়ু ধরা হয়েছে ৫০ বছর। এই সময়কালে গাছগুলি থেকে যে উপকার মিলত, তার আনুমানিক মূল্য ৬০ লক্ষ টাকা।

এখানেই শেষ নয়, তিনি আরও জানিয়েছেন যে, এই হিসেব তাঁর নিজস্ব নয়। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর ফরেস্ট রিসার্চ অ্যান্ড এডুকেশনের গবেষণা থেকে যা পাওয়া গিয়েছে, তার ভিত্তিতেই তিনি এই হিসেব দিয়েছেন এবং উক্ত পরিমাণ টাকা ধার্য করেছেন জরিমানা হিসেবে।

আর সেই হিসাব বলছে, একটি গাছ সারা জীবনে ১২ লক্ষ টাকার অক্সিজেন উৎপাদন করে। বায়ুদূষণ রোধ করতে সাহায্য করে, যার মূল্য ২৪ লক্ষ টাকা। ভূমি ক্ষয়রোধ এবং জল পরিশোধনে যা সাহায্য করে, তার আর্থিক পরিমাণ হিসেব করলে দাঁড়ায় ২৪ লক্ষ টাকা। সব মিলিয়ে একটা গাছ ৫০ বছরে ৬০ লক্ষ টাকার উপকার করে। তাই সব মিলিয়ে ২টি গাছের জন্য এই পরিমাণ টাকা জরিমানা করা হয়েছে বলে জানান মহেন্দ্র সিং।

অন্যদিকে, অভিযুক্ত ছোটে লালের পরিবারের সদস্যদের অবশ্য দাবি, তাঁরা কোনও অন্যায় করেননি। তাঁদের দাবি, তাঁরা জঙ্গলে বাস করেন। জঙ্গলে পড়ে যাওয়া গাছের কাঠ দিয়ে তাঁরা ঘর বানাচ্ছিলেন। কিন্তু বন দফতরের লোকেরা তাঁদের শুধু শুধু অন্যায়ভাবে ঝামেলায় ফেলছেন। এলাকার সবাই মিলেও ১ কোটি ২১ লক্ষ টাকার জরিমানা দিতে পারবেন না।

এদিকে এমন জরিমানার কথা শুনে বন দফতরের উচ্চপদস্থ কর্তারা সেই গবেষণা পত্রের প্রতিলিপি চেয়েছেন। যে গবেষণাপত্রের ভিত্তিতে ছোটে লালকে ওই বিপুল টাকা জরিমানা ধার্য করা হয়েছে। উল্লেখ্য, ২টি গাছ কাটার জন্য ১ কোটি ২১ লক্ষ টাকার জরিমানার ঘটনা এই দেশে প্রথম।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.