অক্সিজেন বন্ধ রেখে ‘মক ড্রিল’ করে মৃত্যু ২২ রোগীর! সিল করে দেওয়া হল হাসপাতাল

অক্সিজেন বন্ধ রেখে ‘মক ড্রিল’ করে মৃত্যু ২২ রোগীর! সিল করে দেওয়া হল হাসপাতাল
অক্সিজেন বন্ধ রেখে ‘মক ড্রিল’ করে মৃত্যু ২২ রোগীর! সিল করে দেওয়া হল হাসপাতাল

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ অক্সিজেনের ঘাটতি সামাল দিতে এমন কোনও উপায় থাকতে পারে, তা ভাবা বা বিশ্বাস করা সত্যিই খুব কঠিন! ইচ্ছাকৃতভাবে ২২ টা প্রাণের মৃত্যু ডেকে আনা, ভাবলেই শিউরে উঠতে হয়।

উত্তরপ্রদেশের আগ্রায় সম্প্রতি অক্সিজেন বাঁচাতে বেশ কিছুক্ষণের জন্য অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়া হয়। আর এর জেরেই, ওই হাসপাতালে ২২ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয় বলে দাবি করা হচ্ছে। একটি ভিডিওতে (যদিও বংনিউজ২৪x৭ ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করেনি) ওই বেসরকারি হাসপাতালের মালিককে বলতে শোনা গিয়েছে, গত ২৬ এপ্রিল হাসপাতালে রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়া হয়। পাঁচ মিনিটের জন্য অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ করে কাদের সমস্যা হচ্ছে, আর কাদের হচ্ছে না, তা দেখা হচ্ছিল। এই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পরই তদন্তের নির্দেশ দেয় প্রশাসন। অতিমারি আইনে ওই হাসপাতালের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে ইতিমধ্যেই। পাশাপাশি হাসপাতালে থাকা ৫৫ জন করোনা রোগীকে অন্যত্র সরিয়ে দেওয়াও হয়েছে।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার পর সবথেকে বেশি প্রকট হয়ে উঠেছে অক্সিজেনের সংকট। দেশের বিভিন্ন জায়গায় অক্সিজেনের অভাবে বহু করোনা আক্রান্তের মৃত্যু হয়েছে। অক্সিজেনের অভাবে হাসপাতালগুলিতে দেখা দিয়েছে হাহাকার। বিভিন্ন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে হাতজোড় করে, অসহায়ভাবে অক্সিজেন চাইতেও দেখা গেছে। আর সেই অক্সিজেন ইচ্ছে করে খুলে দেওয়ায় মাত্র ৫ মিনিটের মধ্যেই ২২ জন করোনা আক্রান্তকে অবলীলায় ঠেলে দেওয়া হল মৃত্যুমুখে।

কাউকে কিছু না-জানিয়ে, চুপিসারে অক্সিজেনের মক ড্রিল (Oxygen Mock Drill) চালানো হয় বলে অভিযোগ৷ অক্সিজেনের সংকটের সময়ে কোন কোভিড রোগী অক্সিজেন ছাড়া থাকতে পারবেন, আর কারা পারবেন না, তা বুঝে নিতে, রোগীদের অক্সিজেন দেওয়া বন্ধ করে দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ৷ অভিযোগ, ভাইরাল হওয়া একটি অডিও ক্লিপে এই কথা স্বীকার করেছেন খোদ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের একজন। জানা গিয়েছে, এমন মক ড্রিল চলাকালীনই মুহূর্তে নীল হয়ে যায় রোগীদের দেহ ৷

সকাল ৭টা নাগাদ ৫ মিনিটের জন্য গোটা হাসপাতালে অক্সিজেন বন্ধ রাখা হয় ৷ এতে ২২ জন রোগী সঙ্কটাপন্ন হয়ে পড়েন৷ জানা গিয়েছে, অক্সিজেনের অভাবে কাউকে না জানিয়েই এই ‘মক ড্রিল’-এর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। পাঁচ মিনিটের জন্য বন্ধ রাখা হয় অক্সিজেন পরিষেবা। হাসপাতালের মালিকের দাবি, ‘প্রয়োজনে রোগীরা অক্সিজেন ছাড়া বেঁচে থাকতে পারেন কি না, তা দেখার জন্যই অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়।’

এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী-সহ বিরোধীরা বিজেপি তথা উত্তরপ্রদেশ সরকারের সমালোচনায় মুখর হয়েছেন। প্রত্যেকেই দোষীদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি করেছেন।