‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই একমাত্র মোদীকে হারাতে পারবেন’! তৃণমূলকে জোটের প্রস্তাব AIUDF-এর

‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই একমাত্র মোদীকে হারাতে পারবেন’! তৃণমূলকে জোটের প্রস্তাব AIUDF-এর
‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই একমাত্র মোদীকে হারাতে পারবেন’! তৃণমূলকে জোটের প্রস্তাব AIUDF-এর

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ একুশের নির্বাচনে মোদী ম্যাজিক সাড়া ফেললেও, শেষপর্যন্ত বাংলার নিজের মেয়ের উপরই ভরসা রেখেছে মানুষ। তাই বিপুল সংখ্যা গরিষ্ঠতায় তৃতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় ফিরেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর বাংলার বিধানসভা নির্বাচনে জিতেই জাতীয় স্তরে সংগঠন আরও মজবুত করতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস ঝাঁপিয়ে পড়েছে। লক্ষ্য ২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচনে মোদীকে কেন্দ্রের ক্ষমতা থেকে সরানো। এই লক্ষ্য পূরণের উদ্দেশে ইতিমধ্যেই অবিজেপি দলগুলিকে একসঙ্গে বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের বার্তাও দিয়েছেন। পাশাপাশি অন্যান্য অবিজেপি দলগুলিও মোদীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপরই ভরসা করছে।

এই পরিস্থিতিতে তৃণমূল কংগ্রেসকে কার্যত জোটের প্রস্তাব দিল অসমের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দল AIUDF বা অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট। তাঁদের মতে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই একমাত্র ব্যক্তি, যিনি নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারবেন। এমনটাই সম্প্রতি এক সর্বভারতীয় সংবাদপত্রকে সাক্ষাৎকারে জানিয়েছে AIUDF-এর বিধায়ক আমিনুল ইসলাম।

আমিনুল ইসলামের কথায়, ‘দেশের মানুষ এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে তাকিয়ে রয়েছেন। তিনিই একমাত্র নেত্রী যিনি মোদীর বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারেন। পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা ভোটে তার প্রমাণ মিলেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হারানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীও একাধিক সভা করেছেন পশ্চিমবঙ্গে। সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করেছেন। তারপরও মমতার সামনে দাঁড়াতেই পারেনি গেরুয়া শিবির।’

তৃণমূলের সঙ্গে জোটের প্রস্তাবও দেন তিনি, বলেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক খুব ভালো। আমাদের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিসভার সদস্য। যদি তৃণমূলের তরফে আমাদের জোটের প্রস্তাব দেওয়া হয়, তাহলে আমরা দলে তা নিয়ে আলোচনা করব। আমরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের সঙ্গে জোটেও যেতে পারি। কংগ্রেসের সঙ্গে এখন আমাদের কোনও সম্পর্ক নেই।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০২১ সালে অসম বিধানসভা ভোটে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করে লড়েছিল অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট। যদিও পরে তাদের সঙ্গে কংগ্রেসের জোট ভেঙে যায়। AIUDF-র সাধারণ সম্পাদক আমিনুল আরও জানিয়েছেন যে, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় ও স্টালিনের মতো নেতারা যদি জোটবদ্ধ হন তাহলে ইউপিএ শক্তিশালী হতে পারে। আঞ্চলিক দলগুলিকেও এক জায়গায় হতে হবে। বিজেপিকে হারানোর মতো অবস্থায় এখন কংগ্রেস নেই। ওরা অসমে আমাদের সঙ্গে জোট ভেঙেছে।’