জঙ্গিপুর এবং সামশেরগঞ্জে পিছিয়ে গেল নির্বাচন! কবে হবে এই দুই কেন্দ্রে নির্বাচন?

জঙ্গিপুর এবং সামশেরগঞ্জে পিছিয়ে গেল নির্বাচন! কবে হবে এই দুই কেন্দ্রে নির্বাচন?
জঙ্গিপুর এবং সামশেরগঞ্জে পিছিয়ে গেল নির্বাচন! কবে হবে এই দুই কেন্দ্রে নির্বাচন?

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ বাংলার শাসনক্ষমতা থাকছে তৃণমূলের হাতেই। ২০০-র বেশি আসনে জয়লাভ করেছে তৃণমূল। এবার শুধু মন্ত্রিসভা গঠনের অপেক্ষা। তবে, এখনও রাজ্যের দুই বিধানসভা কেন্দ্রে ভোট বাকি রয়েছে। এই দুই কেন্দ্র হল, জঙ্গিপুর এবং সামশেরগঞ্জ। তবে, বর্তমান করোনা পরিস্থিতির জন্য এই মুহূর্তে নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন অনির্দিষ্টকালের জন্য। তেমনটাই জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

উল্লেখ্য, বাংলার একুশের বিধানসভা নির্বাচন চলাকালীন এই দুই কেন্দ্রের প্রার্থীদের করোনায় মৃত্যু হয়। যার জেরে নির্ধারিত নির্বাচনের দিনে ওই দুই বিধানসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হয়নি। পরে অবশ্য নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, ১৩ মে এই দুই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে। পরে তা পিছিয়ে ১৬ মে করা হয়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত ২৬ এপ্রিল, সপ্তম দফায় সামশেরগঞ্জ আসনে নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই ১৫ এপ্রিল ওই কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী রেজাউল হক করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান। এরপর নিয়ম অনুযায়ী, বাতিল করা হয় ওই কেন্দ্রের নির্বাচন। আবার ওই একই দিনে অর্থাৎ ২৬ এপ্রিল ভোট হওয়ার কথা ছিল জঙ্গিপুরে। কিন্তু সেখানকার সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী তথা আরএসপির লোকাল কমিটির সম্পাদক প্রদীপ নন্দীর মৃত্যু হয়, করোনায় আক্রান্ত হয়ে। সেখানেও বাতিল হয় ভোটগ্রহণ।

এরপর নতুন করে ১৩ মে ওই দুই কেন্দ্রে ভোটের দিন ঘোষণা করা হয়েছিল। আবার সেদিন সম্ভাব্য ঈদের দিন। ওই দিনে ভোটগ্রহণ করা নিয়ে সমস্যা তৈরি হয়। পুনর্নির্বাচনের দিন বদলে দেওয়ার দাবিতে সরব হন স্থানীয়দের একাংশ। অনেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভোট বয়কটেরও দাবিও জানান। ভোটের নতুন দিন নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। কংগ্রেসের তরফ থেকেও ওই দিন ভোট বাতিলের দাবি জানিয়ে কমিশনে চিঠি দেওয়া হয়। চিঠি দেওয়া হয় AIMIM-এর তরফেও। বিভিন্ন দলের আপত্তি এবং বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে, পরে ওই দুই কেন্দ্রে ভোট ৩ দিন পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে করা হয় ১৬ মে। কিন্তু ফের একবার বর্তমান করোনা পরিস্থিতি এবং সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তের কথা ভেবে তা অনির্দিষ্টকালের জন্য পিছিয়ে গেল।