১৫ দিনের মধ্যে আসামি ধরা না পড়লে ‘ভয়ঙ্কর খেলার’ হুঁশিয়ারি অনুব্রতর

১৫ দিনের মধ্যে আসামি ধরা না পড়লে 'ভয়ঙ্কর খেলার' হুঁশিয়ারি অনুব্রতর
১৫ দিনের মধ্যে আসামি ধরা না পড়লে 'ভয়ঙ্কর খেলার' হুঁশিয়ারি অনুব্রতর

১৫ দিনের মধ্যে যদি আসামি ধরা না পড়ে তাহলে ভয়ঙ্কর খেলা খেলে দেব। বুদবুদে নিহত তৃণমূল কর্মীর বাড়িতে গিয়ে এমনই বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন অনুব্রত মণ্ডল। একইসঙ্গে তৃণমূল সভাপতির হুঁশিয়ারি, খুনে যদি দলের কোন লোক জড়িত থাকে তাহলে তাকেও গুলি করে মেরে দেওয়া হবে।

বুধবার বুদবুদের দেবসালা গ্রামে দুষ্কৃতীদের হুগলিতে নিহত হন তৃণমূল নেতা চঞ্চল বক্সী। পরে আজ তার বাড়িতে যান বীরভূমের তৃণমূলের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। সেখানে গিয়ে নিহতের পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। এরপরেই মৃতের পরিবারের সঙ্গে দেখা করে বেরিয়ে স্বমহিমায় অভিযুক্তদের উদ্দেশ্যে হুঁশিয়ারি দিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন অনুব্রত বাবু।

হুঁশিয়ারি দিয়ে বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি বলেন, “এই খুন আমি মেনে নেব না। আমি এই পরিবারকে খুব ভালো করে চিনি। এদের কোনো শত্রু ছিল না। বিজেপি যদি খুন করে থাকে এবং সেক্ষেত্রে জয়ী তৃণমূল চুপচাপ থাকে তাহলে কেষ্ট মণ্ডল চুপচাপ থাকবে না। দলের কোনও কর্মী খুন করে থাকলে তাকে গুলি করে মেরে দেওয়া উচিত”। এরপরেই পুলিশ প্রশাসনের উদ্দেশ্যে ১৫ দিনের সময়সীমা বেঁধে দেন তিনি। বলেন, “১৫দিনের মধ্যে যদি আসামি ধরা না পড়ে, তাহলে ভয়ঙ্কর খেলা খেলে দিয়ে যাব”।

অন্যদিকে গ্রামের পঞ্চায়েত প্রধান শ্যামল বক্সীও হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, দোষীরা ধরা না পড়লে জায়গায় জায়গায় অবরোধ হবে। পঞ্চায়েত অচল থাকবে। এদিকে পাল্টা বিজেপির অবশ্য দাবি, এই ঘটনার সঙ্গে বিজেপির কোন যোগ নেই কাটমানি এবং অন্তর্দ্বন্দ্বের জেরেই এই খুনের ঘটনা ঘটেছে।