নয়া রাজ্য বিজেপি সভাপতিকে শুভেচ্ছা প্রাক্তনীদের

সোমবার রাতেই নাটকীয় ভাবে বড় রদ বদল হল রাজ্য বিজেপিতে। মেয়াদ উত্তীর্ণের আগেই রাজ্য বিজেপির সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হলো দিলীপ ঘোষ কে। তাঁর জায়গায় নিয়ে আসা হল বালুরঘাটের সাংসদ সুকান্ত মজুমদারকে। আর এই ঘোষণার পরেই নয়া রাজ্য বিজেপি সভাপতিকে অভিনন্দন জানালেন সদ্য প্রাক্তন বিজেপির রাজ্য সভাপতি।

এদিন সুকান্ত মজুমদারকে বিজেপির নতুন রাজ্য সভাপতি হিসেবে ঘোষণা করার পরেই টুইট করেন দিলীপ ঘোষ। সেখানে তিনি লেখেন, “ভারতীয় জনতা পার্টির নতুন রাজ্যসভাপতি হিসেবে ডঃ সুকান্ত মজুমদারকে অভিনন্দন জানাই এবং তার সাফল্য কামনা করি”। প্রসঙ্গত, দিলীপ ঘোষের কাছে নামের তালিকা চেয়েছিলেন জেপি নাড্ডা। সেই তালিকা পাঠিয়েছিলেন দিলীপ ঘোষ। সেখানেই নাম ছিল সুকান্ত মজুমদারের।

অন্যদিকে, এই নয়া রাজ্য বিজেপি সভাপতিকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আরও এক প্রাক্তন রাজ্য বিজেপি সভাপতি তথাগত রায়। টুইটারে তিনি লেখেন, “বালুরঘাটের সাংসদ ডাঃ সুকান্ত মজুমদারকে বিজেপির কেন্দ্রীয় সভাপতি পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির রাজ্য সভাপতি মনোনীত করেছেন। অত্যন্ত সময়োচিত পদক্ষেপ। অনেকদিন আগেকার এক রাজ্য সভাপতির তরফ থেকে নব-মনোনীত রাজ্য সভাপতিকে অভিনন্দন”।

রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, ” সর্ব ভারতীয় সহ সভাপতি হিসেবে মনোনীত হওয়ার জন্য দিলীপ ঘোষকে এবং নতুন রাজ্য বিজেপি সভাপতি হিসেবে সুকান্ত মজুমদারকে আমার আন্তরিক অভিনন্দন। আমি তাদের জন্য শুভ কামনা করি এবং বিশ্বাস করি যে উভয়ই পার্টিকে শক্তিশালী করার জন্য তাদের সেরাটা দেবে।”

মূলত ২০২১ বঙ্গ নির্বাচনে ভরাডুবি ঘটার পরই দিলীপ বাবুকে রাজ্যের মুখ থেকে সরানোর চিন্তাভাবনা শুরু হয়েছিল। যার বদলে কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রীত্ব পাওয়ার আশা ছিল দিলীপের। কিন্তু তাও জুটল না মেদিনীপুরের সাংসদের। যদিও তাঁকে পুরোপুরি নিরাশ করেনি দল। দিলীপ বাবুকে জাতীয় স্তরের সহ-সভাপতি করা হয়েছে।

বিজেপিতে ভাঙনের খেলা ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে। তা আটকাতে এখন বদ্ধ পরিকর গেরুয়া শিবির। কিন্তু সেক্ষেত্রে এখন আর দিলীপ ঘোষের উপর ভরসা করতে পারছেন না নাড্ডা-শাহরা। তাই বালুরঘাটের সাংসদের কাঁধেই গুরুদায়িত্ব দেওয়া হল। এখন দেখার সুকান্ত মজুমদারের উপর ভরসা করে ভোটের বৈতরণী কিভাবে পার করে গেরুয়া শিবির।