এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দায়ের করা নন্দীগ্রাম মামলার শুনানি হবে এই বিচারপতির এজলাসে!

এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দায়ের করা নন্দীগ্রাম মামলার শুনানি হবে এই বিচারপতির এজলাসে!
এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দায়ের করা নন্দীগ্রাম মামলার শুনানি হবে এই বিচারপতির এজলাসে!

সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দায়ের করা নন্দীগ্রাম মামলার শুনানি থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বিচারপতি কৌশিক চন্দ। এবার সেই মামলার শুনানি হতে চলেছে বিচারপতি শম্পা সরকারের এজলাসে। নন্দীগ্রাম মামলার পুরো দায়িত্বভার এবার নিলেন শম্পা সরকার। সোমবার উচ্চ আদালত সূত্রে পাওয়া গেল এমন খবরই।

উল্লেখ্য, ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে নন্দীগ্রাম কেন্দ্রে ভোট গণনায় কারচুপি হয়েছে, এই অভিযোগ তুলে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি কৌশিক চন্দের এজলাসেই সেই মামলার শুনানি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বিচারপতির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন। সম্প্রতি ডেরেকের ট্যুইট করা একটি ছবিতে দেখা গিয়েছিল, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গে একই মঞ্চে বসে রয়েছেন বিচারপতি কৌশিক চন্দ। সে নিয়েই ডেরেক প্রশ্ন তুলেছিলেন, হাইকোর্টের বিচারপতি কি তবে বিজেপি ঘনিষ্ঠ? দিলীপ ঘোষের সঙ্গে মঞ্চে তাঁকে কেন দেখা যাচ্ছে?

এরপরই নন্দীগ্রাম মামলার শুনানি থেকে বিচারপতি কৌশিক চন্দকে সরানোর জন্য কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির কাছে আর্জি জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আইনজীবী। কৌশিক চন্দের নিরপেক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়৷ যা নিয়ে তুমুল বিতর্কেরও সৃষ্টি হয়েছিল। অবশেষে ওই মামলা থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বিচারপতির কৌশিক চন্দ। তবে মামলাকারী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিচারব্যবস্থাকে কলুষিত করার অভিযোগ এনে তাঁকে ৫ লক্ষ টাকা জরিমানাও করেছিলেন।

তারপর থেকে এতদিন কলকাতা হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দালের কাছেই জমা পড়ে ছিল মামলাটি। তবে সোমবার বিচারপতি শম্পা সরকারের এজলাসে মামলাটি তুলে দিলেন প্রধান বিচারপতি। পাশাপাশি জানিয়ে দিলেন নতুন বিচারপতির এজলাসেই হবে আগামী শুনানি। যদিও পরবর্তী শুনানির দিনক্ষণ এখনও ঘোষণা করা হয়নি।