রাজ্যের সিভিক ভলেন্টিয়ার এবং আশা কর্মীদের জন্য বিরাট সুখবর, বড় ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী

রাজ্যের সিভিক ভলেন্টিয়ার এবং আশা কর্মীদের জন্য বিরাট সুখবর, বড় ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী
রাজ্যের সিভিক ভলেন্টিয়ার এবং আশা কর্মীদের জন্য বিরাট সুখবর, বড় ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী

পুজোর আগেই রাজ্যের সিভিক ভলেন্টিয়ার, গ্রিন পুলিশ এবং আশা কর্মীদের জন্য অপেক্ষা করছে বড় সুখবর। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, পূজা উপলক্ষে ৮১০০০ হকারকে ২০০০ টাকা করে ভাতা দেয়া হবে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে। বেতন বৃদ্ধি করা হবে সিভিক ভলেন্টিয়ারদের। এতদিন পর্যন্ত তারা ৮০০০ টাকা বেতন পেতেন এবার থেকে সে অর্থ বাড়িয়ে ৯০০০ করেছেন পুলিশ মন্ত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বৃহস্পতিবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে পুজো উদ্যোক্তাদের সঙ্গে বৈঠক করার পর মুখ্যমন্ত্রী জানান, সিভিক ভলেন্টিয়াররা যখন প্রথম কর্মক্ষেত্রে যোগদান করেছিলেন তাদের তিন হাজার টাকা করে বেতন দেওয়া হতো। পরবর্তী সময়ে সরকার সেই বেতন বাড়িয়েছে। এবার তা আরো ১০০০ টাকা বাড়ানো হল। এছাড়াও করোনা মহামারীর সময় আশা কর্মীরা যেভাবে উদ্যোগ নিয়েছেন এবং বাড়ি বাড়ি গিয়ে করোনা আক্রান্তদের বাছাই করে চিকিৎসা ব্যবস্থায় যোগদান করেছেন সেই জন্য তাদেরও বেতন ১ হাজার টাকা করে বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়াও তিনি বলেন, অঙ্গনওয়াড়ি, আইসিডিএস এর কর্মীদের অবসরের সময় তিন লক্ষ টাকা করে পাবেন।

এদিন একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে সবথেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন হকাররা। এমনকি তাদের ব্যবসা ঠিকমতো না চলায় খাবারটুকু জোগাড় করতে পারছেন না তারা। তাই হকারদের একটি নির্দিষ্ট তালিকা তৈরি করতে চলেছে রাজ্য সরকার। পূজার সময় ৮১০০০ হকারকে দুই হাজার টাকা করে ভাতা দেওয়া হবে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে। মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, পুজোর সময় সকলেই চান নিজের ছেলে মেয়েকে জামাকাপড় কিনে দিতে। কিন্তু করোনার জন্য কার্যত হাতখালি হকারদের। তাই সকলে যাতে সন্তান-সন্ততিতে নতুন জামা কিনে দিতে পারেন সেই জন্যই এই পদক্ষেপ। এছাড়াও পুজো কমিটিগুলিকে রাজ্য সরকার ৫০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা করা হবে বলেও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.