‘মাঝরাতে জল ছাড়লে মানুষ মরে যাবে, এটা অন্যায়’, জল ছাড়ায় DVC-কে আক্রমণ মুখ্যমন্ত্রীর

‘মাঝরাতে জল ছাড়লে মানুষ মরে যাবে, এটা অন্যায়’, জল ছাড়ায় DVC-কে আক্রমণ মুখ্যমন্ত্রীর
‘মাঝরাতে জল ছাড়লে মানুষ মরে যাবে, এটা অন্যায়’, জল ছাড়ায় DVC-কে আক্রমণ মুখ্যমন্ত্রীর

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে বারবার DVC-র বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রী সরব হয়েছেন। আবারও একবার রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতির প্রসঙ্গে DVC-র ভূমিকা নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘ঝাড়খণ্ডে বৃষ্টি হলে আমাদের সামাল দিতে হচ্ছে। বিহারে বৃষ্টি হলে আমাদের সামাল দিতে হচ্ছে।’ মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, ‘মাঝরাতে যদি জল ছাড়ে, তাহলে ঘুমন্ত অবস্থায় মানুষ মরে যাবে। এটা পাপ, অন্যায়।’

এদিকে, রাজ্যব্যাপী দুর্যোগ চলছে একটানা। একের পর এক নিম্নচাপের কারণে বৃষ্টি থামার নামই নিচ্ছে না। রাজ্যের একাধিক জেলা জলমগ্ন। পুজোর মুখে রাজ্যে ফের বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। আসানসোল, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া-সহ দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলা জলের তলায়। এদিকে, জলস্তর বেড়েছে দামোদর এবং অজয় নদে। পশ্চিম বর্ধমানের দুর্গাপুর, পশ্চিম বর্ধমানের দুর্গাপুর, পান্ডবেশ্বর, অন্ডাল, ইলামবাজার, মেজিয়া ও পুরুলিয়ার বিভিন্ন অংশ ডুবে গিয়েছে। জল ঢুকেছে হুগলির খানাকুল, আরামবাগের বিস্তীর্ণ এলাকাতেও। আবার বৃষ্টির জলে ফুঁসছে শিলাবতী, দ্বারকেশ্বর, রুপনারায়ণও। এদিকে, পশ্চিম মেদিনীপুরের ঘাটাল এবং চন্দ্রকোনার পরিস্থিতিও খারাপ। জানা গিয়েছে, শনিবার মুখ্যমন্ত্রী নিজে বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শনে যাবেন।

কিন্তু কেন এই বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হল? আর এই বন্যা পরিস্থিতির জন্য ডিভিসিকেই দায়ী করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যেহেতু ওদের প্রচুর বৃষ্টি হয়েছে। আসানসোলেও এত বৃষ্টি আগে হয়নি কখনও। পরশু রাত ৩ টের সময়ে ঝাড়খণ্ড রাজ্য থেকে আমাদের না জানিয়ে আসানসোলে জল ছেড়়ে দেয়। ফলে আসানসোল, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া পুরো ডুবে গিয়েছে। কালকে আবার ডিভিসি ১ লক্ষ কিউসেকের উপর জল ছেড়েছে।’ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও বলেন যে, ‘ওরা যদি ওদের বাঁধ ও ক্যানালগুলি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে, তাহলে অনেক জল ধরতে পারে। দীর্ঘ ৫০ বছর ধরে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে না। ড্রেজিং করে না। মাঞ্চেত, মাইথন, তেনুঘাটে ২ লক্ষ কিউসেক মেট্রিক টন আরও ধরতে পারে। ওদের খেসারত আমাদের দিতে হচ্ছে। এটা অন্যায়’।

তবে, এই বন্যা পরিস্থিতির জন্য শুধুমাত্র DVC-কেই দায়ী করা নয়, রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতিকে ‘ম্যানমেড’ বলেও উল্লেখ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি স্পষ্টভাবেই বলেন, ‘যদি বৃষ্টির জন্য বন্যা হত, তাহলে বুঝতাম। নিঃসন্দেহে বেশি বৃষ্টি হচ্ছে, আমার সামলাচ্ছি। বন্যাটা কিন্তু হচ্ছে জল ছাড়ার জন্য। মেনম্যাড বন্যা।’ পাশাপাশি এই পরিস্থিতির মোকাবিলায় রাজ্যের সাধারণ মানুষকে ত্রাণ তহবিলে দান করার আহ্বান জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।