টাকার বিনিময়ে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার-সহ বিভিন্ন প্রকল্পের ফর্ম বিলির অভিযোগ! ভাইরাল ভিডিও ঘিরে বিতর্ক

টাকার বিনিময়ে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার-সহ বিভিন্ন প্রকল্পের ফর্ম বিলির অভিযোগ! ভাইরাল ভিডিও ঘিরে বিতর্ক
টাকার বিনিময়ে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার-সহ বিভিন্ন প্রকল্পের ফর্ম বিলির অভিযোগ! ভাইরাল ভিডিও ঘিরে বিতর্ক

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কড়া নির্দেশ সত্ত্বেও বেশ কিছু জায়গায় টাকার বিনিময়ে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্প-সহ বিভিন্ন প্রকল্পের ফর্ম বিলির অভিযোগ প্রকাশ্যে আসছে। ইতিইমধ্যেই এমন ঘটনা ঘটতে দেখা গিয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগণার কুলতুলি ব্লকের কৈখালী-গোপালগঞ্জে। আবার সেই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতে দেখা গেল বীরভূমেও।

বৃহস্পতিবার বীরভূমের লাভপুরে দুয়ারে সরকার সরকারি ক্যাম্প চলাকালীন এমন ঘটনা ঘটেছে বলে একটি ভাইরাল ভিডিওতে দাবি করা হয়েছে। ভাইরাল ওই ভিডিওতে দাবি করা হয় যে, এলাকার তৃণমূল উপপ্রধান তপন চক্রবর্তী এবং অন্যান্য সরকারি আধিকারিকদের সামনেই জেরক্স মেশিন বসিয়ে লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের ফর্ম জেরক্স করে ১০ টাকার বিনিময়ে বিক্রি করা হচ্ছিল। যদিও ওই ভিডিওর সত্যতা জ্জাচাইই করেনি বংনিউজ ২৪x৭।

ওই ভিডিওতে লক্ষ্য করা যায়, যারা এই জেরক্সের কাজ করছিলেন, তাঁদের অবশ্য দাবি, তাঁরা কেবলমাত্র আধার কার্ড সহ অন্যান্য নথি জেরক্স করার কাজ করছিলেন। উপপ্রধান তপন চক্রবর্তীও ভিডিওতে দাবি করেছেন, টাকার বিনিময় ফর্ম বিলি করার মত কোন কাজ করা হয়নি। তবে, এই ভিডিও করার সময় আশেপাশের বেশ কয়েকজনকে টাকা ফেরত দিতে দেখা যাচ্ছিল। ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় বেশ কিছু সময়ের জন্য উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

তবে, লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের ফর্ম বিলি করা নিয়ে কেন বারবার এমন ঘটনা ঘটছে তা নিয়ে প্রশ্ন যেমন উঠছে, তেমনই এর পাশাপাশি শুরু হয়েছে বিতর্ক। কারণ, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগেই স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছিলেন, টাকার বিনিময়ে কোথাও কোনো রকম ফর্ম বিলি করা যাবে না। এই ফর্ম কোন জেরক্স দোকানে মিলবে না অথবা জেরক্সে কাজ চলবে না। দুয়ারে সরকার ক্যাম্পের নির্দিষ্ট লক্ষ্মীর ভান্ডার কাউন্টার থেকেই এই ফর্ম নিতে হবে এবং তা ফিলাপ করে জমা দিতে হবে। ফর্মের সঙ্গে থাকবে একটি ইউনিক নম্বর। কিন্তু এই ঘোষণার পরেও কেন বারবার এমন ঘটনা ঘটছে তা নিয়েই প্রশ্ন উঠছে।