রাজ্যে এখনই ১৮ উর্ধ্বদের ভ্যাকসিন পাওয়ার সম্ভবনা নেই!

রাজ্যে এখনই ১৮ উর্ধ্বদের ভ্যাকসিন পাওয়ার সম্ভবনা নেই!
রাজ্যে এখনই ১৮ উর্ধ্বদের ভ্যাকসিন পাওয়ার সম্ভবনা নেই!

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাজ্যে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। প্রতিদিন সংক্রমণের নয়া রেকর্ড সৃষ্টি হচ্ছে। এদিকে আজ থেকে ১৮ উর্ধ্বদের টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হওয়ার কথা ছিল। তবে, এ রাজ্যে এখনই ১৮ উর্ধ্বদের করোনা টিকা পাওয়ার কোনও সম্ভবনা নেই, কবে থেকে শুরু হবে টিকাকরণ, তাও অনিশ্চিত। এমনটাই জানা যাচ্ছে স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে। এ ব্যাপারে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করেও কোনও সিদ্ধান্তে আসতে পারল না রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর।

এক্ষেত্রে যদিও বা টিকা আসে, তাহলে ৪৫ বছরের বেশি বয়সীদের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার উপরেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হবে বলেই জানা গিয়েছে।

অন্যান্য রাজ্যের পাশাপাশি বাংলাতেও দেখা দিয়েছে ভ্যাকসিনের সংকট। জেলায় জেলায় দীর্ঘক্ষণ মানুষ ভ্যাকসিনের জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন। সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ চরমে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়েও পাওয়া যাচ্ছে না করোনা টিকা। টিকার অভাবে, আজ থেকে ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের টিকা দেওয়া কথা থাকলেও, তা সম্ভব হচ্ছে না। বাংলার পাশাপাশি আরও বেশি কয়েকটি রাজ্যের অবস্থাও একই। দিল্লি আগেই জানিয়েছে যে, তাঁদের কাছে পর্যাপ্ত টিকার জোগান না থাকায়, এই মুহূর্তে তাঁরা ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের টিকাকরণ শুরু করতে পারছেন না।

এদিকে খোদ বিশ্বের বৃহত্তম টিকা উৎপাদনকারী সংস্থা খোদ পুনের সেরাম ইন্সটিটিউটের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, এই মুহূর্তে টিকার উৎপাদনে সংকট দেখা দিয়েছে। তাই চাহিদার অনুযায়ী পর্যাপ্ত জোগান দেওয়া সম্ভব নয়। এই মুহূর্তে ৪৫ বছর বয়সীদের টিকাদানেই অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে। ১৮ বছরের বয়সীরা বেসরকারি হাসপাতালে জুলাই মাসের আগে টিকা পাবেন না। যদিও, দেশের মাত্র ছটি রাজ্য এই সুবিধে চালু করতে পারছে।

উল্লেখ্য, রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, টিকা প্রস্তুতকারী সংস্থার কাছে ২ কোটি ডোজ চেয়ে পাঠানো হয়েছে। আগামী ৩ মাসের মধ্যে যতজনকে ব্যাক্সিন দেওয়া হবে, সেই হিসেবে টিকা পাঠাবে তাঁরা। প্রথম মাসে ১০ লাখ কোভিশিল্ড চলে আসারও সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু কবে? সেটা এখনও নিশ্চিত নয়।

টিকা সংক্রান্ত এই সমস্যা নিয়ে সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করলেন স্বাস্থ্য দফতরের অন্যতম সচিব সৌমিত্র মোহন।

সূত্রের খবর, এই বৈঠকে ১৮ উর্ধ্বদের টিকা দেওয়ার বদলে ৪৫ উর্ধ্বদের ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ সম্পূর্ণ করার উপর জোর দেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। সোমবারের মধ্যে কতজনের দ্বিতীয় ডোজ বাকি আছে, সেই তালিকা জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সমস্ত হাসপাতালগুলিকে। শুধু তাই নয়, স্বাস্থ্য দফতরকে জানিয়ে প্রস্তুতকারক সংস্থার কাছ থেকে টিকা কিনতে হবে বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে এমনটাও বৈঠকে জানানো হয়েছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.