প্রকৃতির রোষে দেবভূমি! উত্তরাখণ্ডে জারি মৃত্যুমিছিল

প্রকৃতির রোষে দেবভূমি! উত্তরাখণ্ডে জারি মৃত্যুমিছিল
প্রকৃতির রোষে দেবভূমি! উত্তরাখণ্ডে জারি মৃত্যুমিছিল

প্রকৃতির রোষানলে দেবভূমি। বন্যায় ও ধসে উত্তরাখণ্ডে মৃত্যুর সংখ্যা। এখনো পর্যন্ত উত্তরাখণ্ডের মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৫। খোঁজ মিলছে না ১১জনের। গুরুতর জখম ১৯। চলছে লাগাতার উদ্ধারকাজ। বৃষ্টি খানিকটা কমলেও পরিস্থিতি এখনো স্বাভাবিক হয়নি।

ইতিমধ্যেই উত্তরাখণ্ডে গিয়ে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। সেখানে ইতিমধ্যেই প্রায় ৭ হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। অন্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রী পুস্কর সিং ধামি বলেছেন, মৃতদের পরিবারকে চার লাখ টাকা দেয়া হবে। যাদের বাড়ি ভেঙেছে, তারা পাবেন এক লাখ ৯০ হাজার টাকা। তিনি হেলিকপ্টার করে দুর্গত এলাকা ঘুরে দেখেছেন। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, ফসলের খুবই ক্ষতি হয়েছে। অনেক জায়গা জলের তলায় চলে গেছে।পাশাপাশি, আবহাওয়া ঠিক না হওয়া পর্যন্ত তীর্থযাত্রীদের পাহাড়ের দিকে যেতে নিষেধ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

উত্তরাখণ্ডের নৈনিতাল, আলমোড়া, রানিখেতের অবস্থা সব চেয়ে খারাপ। নৈনিতাল জেলার রামগড়ের একটি গ্রাম ধসের ফলে খুবই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এখানেই সব চেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছেন। বহু মানুষ এখনো বিভিন্ন জায়গায় ধ্বংসস্তূপের তলায় চাপা পড়ে আছেন বলে প্রশাসন মনে করছে। তাই মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

একাধিক এলাকায় জলের তোড়ে ভেঙে তছনছ হয়ে গিয়েছে সেতু। বহু জায়গায় বিপর্যস্ত রাস্তাঘাট। যার ফলে একেবারে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। মোবাইল দিয়ে ইন্টারনেট পরিষেবা ব্যাহত হয়েছে বহু জায়গায়। দুধ খাবার জল এবং পর্যাপ্ত খাবারের অভাবে কার্যত দিশেহারা সেখানকার সাধারণ মানুষ। উদ্ধারকার্যে রাজ্য বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের পাশাপাশি, এনডিআরএফ, সেনাবাহিনী নামানো হয়েছে।