ভোটের মুখে নিরাপত্তা নিয়ে জেলা প্রশাসনকে কড়া ডোজ কমিশনের

ফের বাড়ছে সংক্রমণ, ভোটকেন্দ্রে সতর্ক থাকার একাধিক নির্দেশ কমিশনের
ফের বাড়ছে সংক্রমণ, ভোটকেন্দ্রে সতর্ক থাকার একাধিক নির্দেশ কমিশনের

নির্বাচনের সময় কোনও বুথে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে সেই ঘটনার ছবি যদি কমিশন না পান তবে সংশ্লিষ্ট এলাকার প্রশাসন কে দায়ী করা হবে। সাফ জানিয়ে দিল নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ। তাই এই বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসনকে বিশেষ সজাগ থাকার নির্দেশ দিয়েছে কমিশন।

উত্তরবঙ্গে বুধবার আটটি জেলার জেলা শাসক, পুলিশ সুপার কে নিয়ে বৈঠক করে নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ। পাশাপাশি ভার্চুয়ালি ওই বৈঠকে অন্যান্য জেলার কর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। সেখানেই যাতে শান্তিপূর্ণ ভাবে নির্বাচন হয় সেদিকে বার বার জোর দিয়েছে তাঁরা। কোনও এলাকায় যদি ভোটের সময় ঝামেলা হয় তাহলে সেক্ষেত্রে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনার পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট চেয়েছে কমিশন।

বৈঠকে প্রশাসনিক কর্তাদের নির্দেশ দিয়ে বলা হয়েছে, এবার যেহেতু বলা হয়েছে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিরা সন্ধ্যের পর ভোট দিতে আসবেন তাই যেন সব বুথেই আলোর ব্যবস্থা থাকে। স্পর্শকাতর বুথ গুলির ৫০ শতাংশ বুথেই ওয়েব কাস্টিংয়ের ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে।

পাশাপাশি, এদিনের বৈঠকে ভোটের প্রস্তুতি ও খতিয়ে দেখেন নির্বাচনী আধিকারিক রা। নিরাপত্তার ক্ষেত্রে আরও মনোযোগী হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয় হাওড়ার (গ্রামীণ) নয়া পুলিস সুপারকেও। কমিশনের তরফে জানানো হয়েছে, ‘রাজ্যে ১ হাজার কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী আসবে। প্রয়োজনে তার থেকেও বেশি পাঠাতে পারি। আপনারা যাবতীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে রাখুন’।

প্রসঙ্গত, ভোটের মুখে একাধিক জায়গা থেকে বোমা উদ্ধার হচ্ছে। এই বিষয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন কমিশনের কর্তারা। এই বিষয়ে জেলা প্রশাসনকে বিশেষ তৎপর হতে বলা হয়েছে।এইভাবে ভোটের আগে বোমা উদ্ধার হলে ভোট দানের হার কমে যাবে বলেও জানান তারা।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.