বড় খবর, কৃষকদের খালিস্তানি বলে আক্রমণ! বলিউড ‘কুইন’ কঙ্গনার বিরুদ্ধে দায়ের FIR

বড় খবর, কৃষকদের খালিস্তানি বলে আক্রমণ! বলিউড ‘কুইন’ কঙ্গনার বিরুদ্ধে দায়ের FIR
বড় খবর, কৃষকদের খালিস্তানি বলে আক্রমণ! বলিউড ‘কুইন’ কঙ্গনার বিরুদ্ধে দায়ের FIR

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ বিতর্ককে সঙ্গে নিয়েই চলেন বলিউড ‘কুইন’ কঙ্গনা রানাওয়াত। বিতর্ক আর কঙ্গনা দুটোই এখন সমার্থক শব্দে পরিণত হয়েছে। সে বিষয়ে কোনও দ্বিমত নেই। এবার কৃষকদের আন্দোলনকে খালিস্তানি বিক্ষোভের সঙ্গে তুলনা করলেন অভিনেত্রী কঙ্গনা। এর জেরে ফের একবার কাঠগড়ায় তিনি। কৃষক আন্দোলনকে খালিস্তানি বিক্ষোভের সঙ্গে তুলনা করায় মুম্বইয়ে তাঁর বিরুদ্ধে দায়ের হল এফআইআর।

সম্প্রতি গুরু নানকের জন্মদিনে, বড় ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বিতর্কিত তিন কৃষি আইন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। কাজেই সাফল্য পায় কৃষকদের আন্দোলন। আর সেই ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই সারা পড়ে যায় দেশজুড়ে। তবে, সরকারের এই সিদ্ধান্তকে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারেননি কঙ্গনা। সেটাই তিনি বুঝিয়ে দিলেন। আর এ বিষয়ে কথা বলতে গিয়েই, কৃষকদের ভাবাবেগে আঘাত করলেন।

অভিনেত্রী ইনস্টাগ্রামে জানিয়েছেন, ‘দুঃখজনক, লজ্জাজনক ও সম্পূর্ণ অন্যায়। সংসদে নির্বাচিত সরকারের পরিবর্তে যদি রাস্তায় বসে থাকা লোকেরাই আইন বানাতে শুরু করে, তাহলে মানতেই হবে এটা একটা জেহাদি দেশ।’ এরপরই কটাক্ষ করে তিনি লেখেন, ‘তাঁদের সকলকে অভিনন্দন যাঁরা এটা চেয়েছিলেন।’ এর পাশাপাশি তিনি কেন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে কৃষকদের এই আন্দোলনকে খালিস্তানি আন্দোলনের সঙ্গেও তুলনা করতে পিছপা হননি। এই কারণেই এবার মুম্বইয়ে শিখ সম্প্রদায়ের অমরজিৎ সান্ধু নামের এক ব্যক্তি কঙ্গনার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তাঁর অভিযোগ, শিখদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করেছেন কঙ্গনা।

অভিযোগকারীর বক্তব্য অনুযায়ী, গত ২১ নভেম্বর তাঁরা ইনস্টাগ্রামে দেখেন, অভিনেত্রীর নিজের প্রোফাইল থেকে হিন্দি ও ইংরিজিতে একটি পোস্ট করা হয়েছে। যেখানে লেখা রয়েছে, ‘হয়তো খালিস্তানি জঙ্গিরা আজ সরকারকে প্যাঁচে ফেলে পিছু হঠতে বাধ্য করেছে… কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না এ দেশের একজন মহিলা প্রধানমন্ত্রী তাদের জুতোর তলায় পিষে দিয়েছিলেন… নিজের জীবন দিয়েও… দেশ ওই মহিলার জন্য অনেক ভুগেছে সে কথা সত্যি কিন্তু উনি এ দেশকে টুকরো টুকরো হয়ে যেতে দেননি… কয়েক দশক বাদেও খালিস্তানিরা তাঁর নাম শুনে কাঁপে… এদের জন্য ওঁর মতো একজন গুরুর প্রয়োজন।’ অমরজিতের দাবি, এভাবে শিখদের অপমান করা হয়েছে। পুলিশ যেন তাঁর বিরুদ্ধে উপযুক্ত পদক্ষেপ করে।