নজিরবিহীন! আগামী নারী দিবসে বাংলাদেশে সংবাদ পাঠে প্রথম রূপান্তরকামী নারী

নজিরবিহীন! আগামী নারী দিবসে বাংলাদেশে সংবাদ পাঠে প্রথম রূপান্তরকামী নারী / Image Source- Facebook Post By @Tashnuva Anan
নজিরবিহীন! আগামী নারী দিবসে বাংলাদেশে সংবাদ পাঠে প্রথম রূপান্তরকামী নারী / Image Source- Facebook Post By @Tashnuva Anan

বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম! স্বাধীনতার মাস ও সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষ্যে সম্প্রতি  প্রথমবারের মতো টেলিভিশনে সংবাদ পাঠ করতে চলেছেন ট্রান্সজেন্ডার বা রূপান্তরকামী নারী তাসনুভা আনান শিশির। স্বাধীনতার ৫০ বছর পুর্তি উপলক্ষে এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগটি নিয়েছে সে দেশের অন্যতম সংবাদ মাধ্যম বৈশাখী টিভি৷ এই উদ্যোগের মাধ্যমে সমাজে রূপান্তরিত নারীদের প্রাপ্য অধিকারের কথা আবারও মনে করিয়ে দিয়েছে এই সংবাদ মাধ্যমটি।

আগামী ৮ মার্চ, সোমবার, আন্তর্জাতিক নারী দিবসে বৈশাখী টেলিভিশনের পর্দায় তাঁর প্রথম সংবাদ বুলেটিন উপস্থাপন করবেন শিশির। যা ওপার বাংলার ইতিহাসে এক  নজিরবিহীন দৃষ্টান্তই বটে! শিশিরের সঙ্গেই সেদিন প্রথমবারের মতো টিভির পর্দায় দেখা যেতে চলেছে আরেক রূপান্তরকামী নারীকে। তিনি নুসরাত মৌ। বৈশাখী টিভির ধারাবাহিক নাটক ‘চাপাবাজ’-এর একটি পর্বে অভিনয় করতে দেখা যাবে তাঁকে। যা ৮ মার্চ রাত ৯টা ২০ মিনিটে সম্প্রচারিত হতে চলেছে।

এই প্রসঙ্গে বৈশাখী টিভির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, দেশ, সমাজ ও সর্বস্তরের সাধারণ মানুষের প্রতি বিশেষ দায়িত্ব রয়েছে বৈশাখী টিভির। নিজেদের কর্মকাণ্ডের মাধ্যমেই জনগণের মনে অনুপ্রেরণার আগুন জ্বালাতে চান টিভির কর্মকর্তারা। প্রতিবছরই আন্তর্জাতিক নারী দিবসে বার্তা বিভাগ পরিচালনার কর্তৃত্ব ছেড়ে দেয়া হয় নারী সাংবাদিক সহকর্মীদের হাতে। তবে এবার আসন্ন নারী দিবসে তাঁরা এমন কিছুই করতে চান যা গত ৫০ বছরে একবারও হয়নি। ফলে সমাজের অবহেলিত ট্রান্সজেন্ডারদের মধ্যে থেকে সম্ভাবনাময়, প্রতিভাবান ব্যক্তিদের এনে সংবাদ এবং নাটকের সঙ্গে যুক্ত করার উদ্যোগে সামিল হয়েছেন তাঁরা। এই উদ্যোগ ও প্রচেষ্টা সমাজে দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করতে এবং অন্য সকলকে এগিয়ে আসতে উৎসাহ যোগাবে বলেও মনে করছেন কর্মকর্তারা।

এই প্রসঙ্গে শিশির স্বয়ং জানান, “স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশের জেন্ডার ডিসক্রিমিনেশন বা চিরাচরিত প্রথা ভাঙতে পারছি এটা আমার জন্য একটা বড় প্রাপ্তি। আমি বিশ্বাস করি, চাইলে যে কেউ নিজের যোগ্যতাবলে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছে যেতে পারে। বৈশাখী টেলিভিশনের এই উদ্যোগ দেশের অন্যান্য সেক্টরে দারুণভাবে ভাবিত করবে, বৈশাখী টেলিভিশন দেশের মানুষকে চিন্তার জায়গা করে। সবাই ট্রান্সজেন্ডারদের নিয়ে ভাববে। আর আমার অনুভূতির কথা যদি বলেন, এটা আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না। বৈশাখী টেলিভিশনের প্রতি আমি খুব গভীরভাবে কৃতজ্ঞ।” জানা গিয়েছে, আগামী ৮ মার্চ থেকে নিয়মিত বৈশাখী টিভিতে সংবাদ পাঠিকা হিসাবে দেখা যাবে তাসনুভা আনান শিশিরকে। নারী দিবসের প্রাক্কালে বাংলাদেশের সমস্ত নারীর কাছে এ যেন এক নতুন আগামীর বার্তা।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.