শনিবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২২

ধূমপান ছাড়াতে সিগারেটের প্যাকেটে আসছে নয়া বদল! কী পরিবর্তন আনা হচ্ছে?

০৭:৫৪ পিএম, নভেম্বর ৩০, ২০২১

ধূমপান ছাড়াতে সিগারেটের প্যাকেটে আসছে নয়া বদল! কী পরিবর্তন আনা হচ্ছে?

সমাজের দীর্ঘস্থায়ী এক ব্যধি হল ধূম্রপান। প্রতি বছরই প্রায় লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয় ধূমপানের কারণে। তা সত্ত্বেও প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে সিগারেটের বেচা-কেনা। সরকারি ভাবে সচেতনতা বাড়ানোর চেষ্টা চললেও সমস্তই বৃথা হয়েছে। এমনকি সিগারেটের প্যাকেটের গায়ে ক্যান্সার আক্রান্ত ভয়াবহ সমস্ত মুখের ছবি দিয়ে সতর্ক করা হলেও সিগারেট সেবনে পিছপা হন না ধূমপায়ীরা।

তবে জনসাধারণের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে এবার আরও কড়া এক পদক্ষেপ নিল সরকার। আমরা প্রত্যেকেই দেখে থাকি, সিগারেটের প্যাকেটের গায়ে থাকা ভয়াবহ সব চিত্রগুলি। যা দেখলেই গা যেন শিউরে ওঠে। এর একটাই উদ্দেশ্য জনসাধারণকে সচেতন করা যে ধূমপান কতটা প্রাণহানিকারক হতে পারে। এবার ১ ডিসেম্বর থেকে সিগারেটের প্যাকেটের ওপরের ওই ছবিগুলি আরও ভয়াবহ রূপে আসতে চলেছে। এমনই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

এর আগেও বহুবার নানা সচেতনতামূলক কার্যক্রমে সামিল হয়েছে সরকার। ২০১৮ সালে ‘টোবাকো কজেস পেনফুল ডেথ‘ স্লোগানের মাধ্যমে সতর্ক করা শুরু হয়৷ ওই সাল থেকেই নতুন করে সিগারেট অ্যান্ড টোবাকো প্রোডাক্টস রুলস করে প্যাকেটের ওপর এইসব ছবির মাধ্যমে বিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ করা হয়। প্রথমে প্যাকেটের ৫০ শতাংশ জায়গা জুড়ে ক্যান্সার আক্রান্ত ভয়াবহ ছবি দেওয়া শুরু হয়, ২০২০ সালের পর থেকে তা প্যাকেটের ৮৫ শতাংশ অংশ জুড়ে করা হয়।

প্যাকেটের উপর প্রতিটি ছবির মেয়াদ থাকে এক বছর। এবার ছবির মেয়াদ শেষ হচ্ছে ৩০ নভেম্বর। তাই ১ ডিসেম্বর থেকে আরও ভয়ঙ্কর ছবি দিয়ে মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা জারি রাখবে সরকার। সরকারের দাবি অনুযায়ী, ধূমপানকারীরা প্রতিনিয়ত এই সব ছবি দেখার ফলে মনের ওপর প্রভাব পড়বে এবং তা সিগারেট ছাড়ার ক্ষেত্রে কার্যকরী হতে পারে। এই সব ছবি দেখে অনেকে নাকি ধূমপানের অভ্যাস ছেড়েও দিয়েছেন বলে সরকারের মত। এমনকি বহু মানুষ গত কয়েক বছরে টোল ফ্রি নম্বরে ডায়াল করে এই বিষয়ে সম্পর্কে জেনে ধূমপান ছাড়ার বিষয়ে আগ্রহও দেখিয়েছেন।