ফের নিম্নচাপের ভ্রূকুটি! অপেক্ষায় আরও তিন, রাজ্যব্যাপী ফের ভারী বৃষ্টির সতর্কতা জারি

ফের নিম্নচাপের ভ্রূকুটি! অপেক্ষায় আরও তিন, রাজ্যব্যাপী ফের ভারী বৃষ্টির সতর্কতা জারি
ফের নিম্নচাপের ভ্রূকুটি! অপেক্ষায় আরও তিন, রাজ্যব্যাপী ফের ভারী বৃষ্টির সতর্কতা জারি / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ এটা আশ্বিন মাস। অথচ আশ্বিনেও বৃষ্টি থামার নাম নেই। প্রায় প্রতিদিনই বৃষ্টি হয়েই চলেছে। রবিবার রাতভর তুমল বৃষ্টিতে ভাসে কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলা। কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলাগুলিতে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে। এই বৃষ্টি সোমবারও অনেকটা সময় জুড়েই হয়। কলকাতায় সেপ্টেম্বর মাসে বৃষ্টির ১৩ বছরের পুরনো রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে সপ্তাহান্তে নিম্নচাপের প্রভাবে শুরু হওয়া বৃষ্টি৷ কলকাতায় সোমবার এত বৃষ্টি হয়েছে যে ১৩ বছরে সেপ্টেম্বরে এত বৃষ্টি কখনও হয়নি৷ সোমবারের প্রবল বৃষ্টির কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের বিস্তৃর্ণ এলাকা জলের নিচে৷

এদিকে নিম্নচাপের ধারা অব্যাহত। রাজ্যজুড়ে এই নিম্নচাপের কারণে যে বৃষ্টি হয়ে চলেছে, এই মুহূর্তে তা কমার কোনও লক্ষণ নেই। অতিবৃষ্টির কারণে কলকাতার পাশাপাশি একাধিক জেলায় ফের নতুন করে জলযন্ত্রণার পরিস্থিতি আরও জটিল আকার নিয়েছে। রাতভর বৃষ্টির কারণে একাধিক জেলা জলমগ্ন।

পরিস্থিতি ক্রমশ জটিল হয়ে পড়েছে। আলিপুর আবহাওয়া দফতরের তরফে জানান হয়েছে যে, আরও তিনটি নিম্নচাপ তৈরি হচ্ছে। যার জেরে আগামী সপ্তাহ পর্যন্ত চলতে পারে বৃষ্টি। কাজেই এটা পরিষ্কার যে, এখনই দুর্যোগ কমছে না। আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গিয়েছে যে, বুধবার পর্যন্ত রাজ্যের বেশ কিছু জেলায় ভারী বৃষ্টি হবে। মঙ্গলবার অর্থাৎ আজ বৃষ্টির দাপট কিছুটা হলেও কমতে পারে।

অন্যদিকে, গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের উপর অবস্থান করছে একটি ঘূর্ণাবর্ত। এর পাশাপাশি কলকাতার উপর দিয়ে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে মৌসুমী অক্ষরেখা। এই দুইয়ের জেরে বাংলার আকাশে অবস্থান করছে দুর্যোগের মেঘ। এই পরিস্থিতিতে মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে না যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। আগামী কয়েক দিন ভারী বৃষ্টির কারণে নদীর জলস্তর বৃদ্ধির পূর্বাভাসও দেওয়া হয়েছে হাওয়া অফিস সূত্রে।

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই ২৪ ঘণ্টার জন্য কন্ট্রোল রুম খুলেছে প্রশাসন। সব রকম ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে। তবে, চিন্তা বাড়াচ্ছে আবহাওয়া দফতরের সতর্কবার্তা। এই সতর্কবার্তা গিয়েছে নবান্নেও। ইতিমধ্যে ২৪ ঘণ্টার কন্ট্রোল রুম খুলেছে প্রশাসন। তবে চিন্তা বাড়াচ্ছে আবহাওয়া দফতরের সতর্কবার্তা। যা পৌঁছে গিয়েছে জেলাগুলোকে সতর্ক করা হয়েছে। বিপর্যয় মোকাবিলার জন্য প্রত্যেক জেলাশাসককে আপৎকালীন ফান্ড পাঠানো হয়েছে। ৫৭৭ টি ত্রাণ শিবির চলছে। যেখানে ৮০ হাজারের বেশি মানুষ রয়েছেন। বিপদ হতে পারে এমন জায়গা থেকে ইতিমধ্যে ১ লক্ষ ৪১ হাজার মানুষকে সরিয়েছে রাজ্য প্রশাসন।

এদিকে, টানা বৃষ্টিতে রেকর্ড হারে কমেছে তাপমাত্রা। আজ দিনে্র সর্বাধিক তাপমাত্রা থাকবে ২৬.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস যা স্বাভাবিকের থেকে ৭ ডিগ্রি কম। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ২৪.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৯৮ শতাংশ, ন্যূনতম ৮৯ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ১৬০.২ মিলিমিটার।