৩৭ ওভারেই ম্যাচ শেষ! শ্রীলঙ্কায় জিতেও পৃথ্বী, ঈশানের খেলা দেখে গভীর চিন্তায় পড়লেন অধিনায়ক ধাওয়ান

৩৭ ওভারেই ম্যাচ শেষ! শ্রীলঙ্কায় জিতেও পৃথ্বী, ঈশানের খেলা দেখে গভীর চিন্তায় পড়লেন অধিনায়ক ধাওয়ান / ছবি সৌজন্যে- BCCI twitter
৩৭ ওভারেই ম্যাচ শেষ! শ্রীলঙ্কায় জিতেও পৃথ্বী, ঈশানের খেলা দেখে গভীর চিন্তায় পড়লেন অধিনায়ক ধাওয়ান / ছবি সৌজন্যে- BCCI twitter

শ্রীলঙ্কার মাঠে তাদের বিরুদ্ধে প্রথম একদিনের ম্যাচে জয় ছিনিয়ে নিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট দল। টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করে ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৬২ রান করে শ্রীলঙ্কা। জবাবে মাত্র ৩ উইকেট হারিয়ে ৩৬.৪ ওভারেই জয়ের রান তুলে নেয় ভারত৷ ৭ উইকেটে জিতে যায় ভারতীয় দল৷ অধিনায়ক হিসেবে ব্যাট হাতে প্রথম ম্যাচে মাতিয়ে দিয়েছেন শিখর ধাওয়ান। তবে জয়ের মুখ্য কারিগর কিন্তু আরও দুজন, পৃথ্বী শ এবং ঈশান কিষান। এবং তাঁদের খেলা দেখেই এবার চিন্তায় পড়ে গিয়েছেন ধাওয়ান।

শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ম্যাচে ডেবিউ হয় ‘বার্থডে বয়’ ঈশান কিশান এবং সূর্য কুমার যাদবের। জন্মদিনের দিনই ডেবিউ ম্যাচে মাঠে নেমে ক্রীড়াপ্রেমীদের মন জয় করে নিয়েছেন ঈশান। প্রথম ম্যাচেই মাত্র ৪২ বলে ৫৯ রান করেন তিনি৷ অন্যদিকে সূর্য কুমার যাদবও পরে ব্যাট করতে নেমে ২০ বলে ৩১ রান করে অপরাজিত থাকেন। তবে জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছিলেন পৃথ্বী শ। ম্যাচের সেরাও নির্বাচিত হন তিনি। পৃথ্বী ম্যাচ ওপেন করতে নেমে মাত্র ২৪ বলে ৪৩ রান করে আউট হয়ে ফিরে যান। কিন্তু ততক্ষণে ম্যাচ ভারতের হাতের মুঠোয়।

দলের তরুণ ক্রিকেটারদের এরকম খেলা দেখে অধিনায়ক ধাওয়ান যেমন একাধারে ভীষণই খুশি, তেমনই তাঁর মনে হচ্ছে নিজের আরও উন্নত করা দরকার। তাঁর কথায়, “ওদের দেখে মনে হচ্ছে, আমাকে নিজের দক্ষতার উপর এবার আরও বেশি জোর দিতে হবে। পৃথ্বী, ঈশান বা সূর্য ব্যাট করতে আসার সময় মাথা ঠান্ডা রেখেছিল। আমাকে দক্ষতা আরও বাড়াতে হবে।” উল্লেখ্য,ব্যাট হাতে ধাওয়ানের ভূমিকা কম ছিল না। ৯৫ বলে ৮৬ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনিও। তরুণ ক্রিকেটারদের সঙ্গী করে ম্যাচ জিতিয়ে তবে মাঠ ছাড়েন অধিনায়ক।

এরপরই দলের তরুণ ক্রিকেটারদের প্রশংসায় মাতেন ধাওয়ান। তিনি বলেন, “দলের প্রত্যেকে আজ অসাধারণ খেলেছে। প্রত্যেকে অনেক পরিণত এবং আক্রমণাত্মক। ওদের খেলা দেখে আমি খুব খুশি। পৃথ্বী এবং ঈশানকে দেখে দারুণ লাগছিল। এরা প্রত্যেকেই আইপিএল খেলে এসেছে। আমি ওদের বলছিলাম মাথা ঠান্ডা রাখতে। প্রথম ১৫ ওভারেই ম্যাচ হাতের মুঠোয় নিয়ে চলে এসেছিল ওরা।” তবে নিজেও তো দাঁড়িয়েছিলেন শতরানের দোরগোড়ায়। সেঞ্চুরি মিস হতে খারাপ লাগেনি? ধাওয়ানের সাফ জবাব, “একবার সে কথা খেয়াল হলেও স্কোরবোর্ডে রান বেশি না থাকায় ঠিক করেছিলাম ম্যাচ জিতিয়েই ফিরব।”