দূরপাল্লার ট্রেন যাত্রীদের জন্য সুখবর! যাত্রী সুবিধার্থে রেল গ্রহণ করতে চলেছে এই সিদ্ধান্ত

দূরপাল্লার ট্রেন যাত্রীদের জন্য সুখবর! যাত্রী সুবিধার্থে রেল গ্রহণ করতে চলেছে এই সিদ্ধান্ত
দূরপাল্লার ট্রেন যাত্রীদের জন্য সুখবর! যাত্রী সুবিধার্থে রেল গ্রহণ করতে চলেছে এই সিদ্ধান্ত / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ দূরের ট্রেন যাত্রার সময় আর প্যাচপ্যাচে গরম ও অস্বস্তি সহ্য করতে হবে না যাত্রীদের। কেন? এবার থেকে দূরপাল্লার ট্রেনগুলির সমস্ত কামরাই বাতানুকুল (AC) করার পরিকল্পনা করছে ভারতীয় রেল। রেলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যাত্রীদের স্বাচ্ছন্দ্যের কথা মাথায় রেখেই এই পরিকল্পনা করা হয়েছে। যদিও এখনও ভারতীয় রেল মন্ত্রকের পক্ষ থেকে এই বিষয়ে কোনও ঘোষণা না করা হয়নি। তবে, সূত্রের খবর, এসি কামরায় যাতায়াতের জন্য যাত্রীদের অতিরিক্ত টাকা ব্যয় করতে হবে না। বর্তমানে যা ভাড়া রয়েছে, তা অতি সামান্য বাড়ানো হতে পারে বলেই খবর।

সূত্রের খবর, নতুন এসি কামরাগুলি সম্পূর্ণ সংরক্ষিত হবে এবং এক একটি কামরায় ১০০ থেকে ২০০ জন যাত্রীর বসার ব্য়বস্থা করা হবে। এর ফলে যাত্রীদের অতিরিক্ত খরচও বহন করতে হবে না। রেল কর্তৃপক্ষের তরফে ইতিমধ্যেই এই বিষয়ে পরিকল্পনা শুরু করে দেওয়া হয়েছে। পঞ্জাবের কপুরথালায় এই নতুন এসি কামরাগুলি তৈরি করা হবে বলে জানা গিয়েছে। কামরাগুলিতে স্বয়ংক্রিয় দরজাও থাকবে বলে জানা গিয়েছে।

প্রতীকী ছবি

ট্রেনে যে সাধারণ কামরাগুলি থাকবে, তা অসংরক্ষিত হিসাবেই থাকবে। তবে, করোনা কালে এই কামরাগুলিকেও সংরক্ষিত কামরাতেই পরিণত করা হয়েছিল। সম্প্রতি ভারতীয় রেলের পক্ষ থেকে বাতানুকুল ইকোনমি কামরাও আনা হয়েছে, যার ভাড়া এসি-৩ টায়ারের তুলনায় অনেকটাই কম। স্লিপার ক্লাসে যে সমস্ত যাত্রীরা যাতায়াত করেন, তাঁদের জন্য এই ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

সম্প্রতিই রেল মন্ত্রকের তরফে রেল পরিষেবা স্বাভাবিক করার কথা ঘোষণা করা হয়েছে। উল্লেখ্য, করোনাকালে যে ১৭০০-রও বেশি ট্রেন চলাচল স্থগিত রাখা হয়েছিল, তা আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই চালু করা হবে বলে জানা গিয়েছে। পাশাপাশি এও জানানো হয়েছে যে, আগের সময়সীমা ও ভাড়াতেই চলবে এই ট্রেনগুলি। রেলমন্ত্রক সূত্রে আরও জানানো হয়েছে, বর্তমানে ৯৫ শতাংশ দূরপাল্লার অর্থাৎ এক্সপ্রেস ট্রেনই চালু হয়ে গিয়েছে। যদিও ২৫ শতাংশ ট্রেন এখনও বিশেষ ট্রেন হিসাবে চলছে। তবে, আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই সেগুলিকেও নির্দিষ্ট রুট অনুযায়ী, সাধারণ দূরপাল্লার  ট্রেন হিসাবেই চালানো হবে বলে জানানো হয়েছে রেলের পক্ষ থেকে।