মঙ্গলবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২৩

আটলান্টিক সাগরের গভীরেই সলিল সমাধি! টাইটানের যাত্রীরা মৃত, ঘোষণা আমেরিকার উপকূলরক্ষা বাহিনীর

আত্রেয়ী সেন

প্রকাশিত: জুন ২৩, ২০২৩, ১১:৩৬ এএম | আপডেট: জুন ২৩, ২০২৩, ০৭:৩৬ এএম

আটলান্টিক সাগরের গভীরেই সলিল সমাধি! টাইটানের যাত্রীরা মৃত, ঘোষণা আমেরিকার উপকূলরক্ষা বাহিনীর
আটলান্টিক সাগরের গভীরেই সলিল সমাধি! টাইটানের যাত্রীরা মৃত, ঘোষণা আমেরিকার উপকূলরক্ষা বাহিনীর

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ আশা ছিল হয়তো অভিযাত্রীরা সকলেই জীবিত আছেন। সেই আশাতেই চলছিল খোঁজ। এমনকি নামানো হয়েছিল রোবটও। কিন্তু ব্যর্থ সব আশা, ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাওয়ার পর সব আশা শেষ। টাইটানিকের মতোই আটলান্টিকের সাগরের অতল গভীরেই সলিল সমাধি হল নিখোঁজ হওয়া সাবমেরিন টাইটানের। আর টাইটানের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাওয়ার পরই ওই যানের সকল অভিযাত্রীকেই মৃত বলে ঘোষণা করল আমেরিকার উপকূলরক্ষা বাহিনী এবং টাইটানিকের ধ্বংসাবশেষ দেখতে নিয়ে যাওয়া সংস্থা ‘ওশানগেট’।

আমেরিকার উপকূলরক্ষা বাহিনীর রিয়ার অ্যাডমিরাল জন মউগার বলেছেন, ‘টাইটানিকের ধ্বংসাবশেষের ১৬০০ ফুট দূরে ডুবোযান টাইটানের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পেয়েছে রোবট। মনে করা হচ্ছে, দুর্ঘটনার সময় ডুবোযানটি ভিতরের দিকে দুমড়ে মুচড়ে গিয়েছিল। অভিযাত্রীদের এখনই উদ্ধার করা সম্ভব হবে কি না তা বলা কঠিন। ঘটনাস্থলের পরিবেশ প্রতিকূল। মৃতদের পরিবারের প্রতি আমাদের সমবেদনা রইল।” আবার অভিযানকারী সংস্থা ওশানগেটও এক বিবৃতিতে দুর্ঘটনায় মৃতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছে।

কানাডার পূর্বে নিউ ফাউন্ডল্যান্ডের উপকূলে জাহাজ থেকে আটলান্টিকের গভীরে ডুব দিয়েছিল সাবমেরিন টাইটান। মহাসাগরের গভীরে যেখানে টাইটানিকের ধ্বংসাবশেষ রয়েছে, অভিযাত্রীদের সেই জায়গা ঘুরে দেখায় ওশানগেট সংস্থার এই ডুবোজাহাজ টাইটান। ওশানগেট সংস্থার তৈরি ওই ডুবোযান গত রবিবার পাঁচ যাত্রীকে নিয়ে সমুদ্রের ১৩ হাজার ফুট গভীরে নেমেছিল।

কিন্তু যাত্রা শুরুর ঘণ্টা দেড়েক পর থেকেই নিখোঁজ হয়ে যায় টাইটান। কোনও যোগাযোগ করা যাচ্ছিল না টাইটানের সঙ্গে। সঙ্গে সঙ্গেই নিখোঁজ ডুবোজাহাজ উদ্ধারের কাজে নেমেছিল আমেরিকা এবং কানাডার সেনা। উত্তর অতলান্তিক মহাসাগরে চলছিল খোঁজ। এমনকি ডুবোযানের শব্দ ধরার জন্য শব্দতরঙ্গ যন্ত্রও বসানো হয়েছিল। উপকূলরক্ষী এবং বিমানবাহিনীর সঙ্গে তল্লাশিতে নেমেছিল রোবটও।

শেষপর্যন্ত ওই রোবটই টাইটানিকের কাছেই একটি অন্য যানের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পায় এবং পরে আমেরিকার উপকূলরক্ষা বাহিনী সেটিকে টাইটানের ধ্বংসাবশেষ বলেই চিহ্নিত করে। সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, ডুবোযানটিতে ছিলেন ব্রিটেনের কোটিপতি ব্যবসায়ী হামিশ হার্ডিং, পাকিস্তানের ব্যবসায়ী শাহজাদা দাউদ এবং তাঁর পুত্র সুলেমান। এছাড়াও ছিলেন ওশানগেট সংস্থার মুখ্য আধিকারিক স্টকটন রাশ এবং ফরাসি নাবিক পল হেনরি নারজিওলেট।