শনিবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২৩

আতঙ্কের রেশ কাটার আগেই ফের মার্কিন মুলুকে বন্দুকবাজের হামলা! তিন হামলায় মৃত অন্তত ৯

আত্রেয়ী সেন

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৪, ২০২৩, ১০:১৫ এএম | আপডেট: জানুয়ারি ২৪, ২০২৩, ১০:১৫ এএম

আতঙ্কের রেশ কাটার আগেই ফের মার্কিন মুলুকে বন্দুকবাজের হামলা! তিন হামলায় মৃত অন্তত ৯
আতঙ্কের রেশ কাটার আগেই ফের মার্কিন মুলুকে বন্দুকবাজের হামলা! তিন হামলায় মৃত অন্তত ৯ / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ আতঙ্কের রেশ কাটার আগেই ফের বন্দুকবাজের হামলায় রক্তাক্ত মার্কিন মুলুক। মঙ্গলবার আমেরিকার তিনটি শহরে গুলি চালানোর ঘটনা ঘটেছে। এই তিনটি ঘটনায় মোট ৯ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। পাশাপাশি আহত হয়েছেন একাধিক। স্থান্য এক সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর, শেষের গুলি চালানোর ঘটনা ঘটেছে ক্যালিফোর্নিয়ার হাফ মুন বে শহর থেকে। উল্লেখ্য, এই তিনটি জায়গায় গুলি চালানোর ঘটনায় অভিযুক্তদের ইতিমধ্যেই আটক করা হয়েছে।  

৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আমেরিকার ফের বন্দুকবাজের হামলা হল। এবারের স্থান ক্যালিফোর্নিয়া। তিনটি আলাদা আলাদা ঘটনায় মোট ৯ জনের মৃতের তালিকায় ২ জন ছাত্রও রয়েছে। উল্লেখ্য, মাত্র ২ দিন আগেই লস লস অ্য়াঞ্জেলেসে বন্দুকবাজের হামলার ঘটনায় ১১ জনের মৃত্য়ু হয়েছিল। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে এবার উত্তর ক্য়ালিফোর্নিয়া এবং লোয়া অঞ্চলে হামলার ঘটনা ঘটেছে।

এই তিনটি হামলার মধ্যে ডেস মোইনেস স্কুল ডিস্ট্রিক্টের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে, ‘আমরা আরেকটি বন্দুক হামলার কথা জানতে পেরে দুঃখিত। বিশেষ করে এমন একটি যা আমাদের কিছু ছাত্রদের সঙ্গে খুব ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করে এমন একটি সংস্থার উপর প্রভাব ফেলেছে। আমরা এখনও পর্যন্ত আরও বিস্তারিত জানার জন্য অপেক্ষা করছি। এই ঘটনায় মৃতদের পরিবার ও আহতদের প্রতি আমাদের সমবেদনা।’ আমেরিকার আইওয়া প্রদেশের ডেস মোইনেস শহরের একটি শিক্ষাকেন্দ্রে আচমকাই হানা দেয় বন্দুকবাজরা। স্কুলে ঢুকে এলোপাথাড়ি চালাতে শুরু করে। সেই ঘটনায় দুই ছাত্র-সহ মোট তিন জন জখম হন। তাঁদের তিনজনের অবস্থাই আশঙ্কাজনক ছিল। হাসপাতালে তাঁদের উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হলে, দুই ছাত্রের মৃত্যু হয়। পাশাপাশি যখন শিক্ষক আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে, ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হামলার পরেই সেখান থেকে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। ওই বন্দুকবাজদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করে পুলিশ ঘটনার অব্যবহিত পরেই। খবর পেয়ে, শহরের রাস্তায় একটি গাড়ি আটক করা হয়। সেখান থেকে তিন সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। স্কুলে হামলার নেপথ্যে তারা জড়িত থাকতে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে। তিনজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।  

অন্যদিকে, উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ার হাফ মুন বে শহরে পৃথক দুটি হামলায় মৃত্যু হয়েছে মোট সাত জনের। সেই সঙ্গে অনেকেই আহত হয়েছে ওই হামলায়। আহতরা প্রত্যেকেই বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এই হামলার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে কয়েক জনকে গ্রেফতারও করেছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত শনিবার রাতেই ক্যালিফোর্নিয়াতে এরকমই একটি হামলা হয়। ৭২ বছর বয়সি এক বন্দুকবাজ মন্টেরে পার্কে চিনা নববর্ষ কমপক্ষে অন্তত ১০ জনের মৃত্যু হয়। আহত একাধিক। পরে পার্কের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে ওই হামলাকারী ব্যক্তিকে চিহ্নিত করা হয়। পুলিশ পার্কে আসার আগেই সেখান থেকে আততায়ী গাড়ি নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ রাস্তায় ওই ব্যক্তিকে ঘিরে ফেললে নিজের শরীরে গুলি করে আত্মঘাতী হন অভিযুক্ত। তাঁকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় এবং আগ্নেয়াস্ত্রও মেলে। সেই ঘটনার ৪৮ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই আরও তিন হামলার খবর প্রকাশ্যে এল।

এদিকে, আমেরিকার বারবার বন্দুকবাজের হামলার ঘটনায় পুরনো বিতর্ক ফের নতুন করে মাথাচাড়া দিচ্ছে। সাধারণ মানুষ সহজেই আগ্নেয়াস্ত্র হাতে পেয়ে যাওয়ায়, এই ধরনের হামলার ঘটনা খুব সহজেই বাড়ছে। গত বছর আমেরিকায় ৬০০-র বেশি এই ধরনের হামলার ঘটনা ঘটে। শুধুমাত্র ২০২২ সালেই আমেরিকায় গুলিবিদ্ধ হয়ে বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছে।