দেশের সব ডাক্তারদেরই এই সম্মানে সম্মানিত করা হোক, দাবি তুললেন কেজরিওয়াল

দেশের সব ডাক্তারদেরই এই সম্মানে সম্মানিত করা হোক, দাবি তুললেন কেজরিওয়াল
দেশের সব ডাক্তারদেরই এই সম্মানে সম্মানিত করা হোক, দাবি তুললেন কেজরিওয়াল

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ দেশের সব চিকিৎসক-নার্সদের ‘ভারতরত্ন’ সম্মানে সম্মানিত করার দাবি তুললেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। রবিবার এই আর্জি জানিয়েই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী তথা আপ নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

করোনা অতিমারি পরিস্থিতিতে নিজেদের জীবন এবং পরিবারের ঝুঁকির পরোয়া না করেই, দিনরাত এক করে তাঁরা নিরন্তর করোনা আক্রান্তের চিকিৎসা করে গেছেন। তাঁদের প্রাণ বাঁচানোর লড়াই করেছেন। এখনও করে চলেছেন। এই লড়াই লড়তে গিয়ে এখনও পর্যন্ত দেশে অনেক চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীদের মৃত্যু পর্যন্ত হয়েছে। তবুও মৃত্যুভয়ে তাঁরা পিছিয়ে যাননি। টানা দু’বছর সামনের সারিতে থেকে অক্লান্ত পরিশ্রম করে গেছেন তাঁরা। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, আগস্টের শেষে কিংবা সেপ্টেম্বরের শুরুতেই আছড়ে পড়তে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ। তাই নতুন করে লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত হচ্ছেন ডাক্তার-নার্সরা।

এই পরিস্থিতিতে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর মতে, এবার দেশের সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মানে তাঁদের ভূষিত করা হোক। রবিবার সকালে এনিয়ে একটি টুইট করেও, তিনি লিখেছেন, ‘এ বছর ভারতীয় চিকিৎসকদেরই ভারতরত্ন পাওয়া উচিত। চিকিৎসক অর্থে আমি কিন্তু ডাক্তার, নার্স-সহ সব স্বাস্থ্যকর্মীদের কথাই বলতে চাইছি। করোনায় শহিদ চিকিৎসকদের প্রতি এটাই হবে দেশবাসীর তরফে সেরা শ্রদ্ধাঞ্জলি।’ এর জন্য প্রয়োজনে পুরস্কারের নীতি বদলের দাবিও জানিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী চলতি মাসে ১ তারিখ ‘চিকিৎসক দিবস’-এ ফের একবার চিকিৎসকদের আত্মত্যাগের প্রশংসা করেন। বলেন, ‘একজন নাগরিকের মৃত্যুও দুঃখজনক। তবে এই অতিমারীতে ভারত বহু প্রাণ রক্ষাও করতে পেরেছে। যার সম্পূর্ণ কৃতিত্ব দেশের চিকিৎসক-নার্স তথা সব স্বাস্থ্যকর্মীর।’ আর এবার আপ নেতা কেজরিওয়াল চাইছেন, ভারতরত্ন সম্মানে ভূষিত করা হোক ‘ভারতীয় চিকিৎসকদের’। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, এতে খুশিই হবেন দেশের মানুষ।

দেশব্যাপী করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই মানুষের প্রাণ বাঁচাতে ঝাঁপিয়ে পড়েন চিকিৎসক-নার্সরা। দিনের পর দিন নিজের পরিবার-পরিজনের থেকে দূরে থেকে, দেশের মানুষের স্বার্থে কাজ করে গেছেন তাঁরা। আর এর সাক্ষী গোটা দেশ। ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের (আইএমএ) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, করোনার সঙ্গে যুঝতে গিয়েই দেশের প্রায় ১৫০০ চিকিৎসক মারা গিয়েছেন। বহু স্বাস্থ্যকর্মীরও মৃত্যু হয়েছে। আইএমএ-র দাবি, দ্বিতীয় ঢেউয়ে প্রায় ৮০০ চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে দেশে। শুধু দিল্লিরই ১২৮ জন। নিজের রাজ্যে মৃত চিকিৎসকের পরিবারকে এক কোটি টাকা করে ক্ষতিপূরণও দিচ্ছেন কেজরিওয়াল। এবার কেন্দ্রের কাছে তাঁর আর্জি-চিকিৎসদের জন্য সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দেশে ১৯৫৪ সাল থেকে ভারতরত্ন সম্মান দেওয়া শুরু হয়। সমাজ-সংস্কৃতি-অর্থনীতি-ক্রীড়া প্রভৃতি বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের এই সম্মান দেওয়া হয়ে আসছে। আবার কোনও কোনও বছরে একের অধিক ব্যক্তি এই সম্মানে ভূষিত হলেও, এখনও পর্যন্ত কোনও গোষ্ঠীকে এই সম্মান দেওয়ার নজির নেই। তাই এক্ষেত্রে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী তথা আপ নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বক্তব্য, ‘নিয়ম যদি না-থাকে, প্রধানমন্ত্রীকে সেক্ষেত্রে পুরস্কার-নীতিতে বদল আনার আর্জি জানাতে চাই। করোনা-যোদ্ধা চিকিৎসক, নার্সদের সম্মান জানানোর এর চেয়ে ভালো উপায় আর হতে পারে না। গোটা দেশ এঁদের প্রতি কৃতজ্ঞ।’