“সূর্য ওম জপছে”, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো ভিডিও শেয়ার করে ব্যঙ্গের শিকার কিরণ বেদী

Image source: Google

বিশেষ প্রতিবেদনঃ সূর্যের ‘ওম’ জপের ভিডিও সত্য, হোয়াটসঅ্যাপ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিডিও শেয়ার করে এমন মন্তব্য করায় এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় হাসির খোরাক হলেন পদুচেরির উপরাজ্যপাল কিরণ বেদী। বহুদিন ধরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনার বিষয়বস্তু হয়ে উঠেছে সূর্যের ‘ওম’ জপ করার এই ভিডিওটি। বহু শিক্ষিত মানুষও এই ভিডিওটিকে সত্য মনে করে বোকা সাজছেন। এবার তাঁদের দলেই নাম লেখালেন পদুচেরির উপরাজ্যপাল।

আজ শনিবার এই ভিডিওটি ট্যুইটারে পোস্ট করে কিরণ বেদী লেখেন। নাসার রেকর্ড করা সূর্যের এই ভিডিওটিতে সূর্যকে ‘ওম’ যপ করতে শোনা যাচ্ছে। সকাল ৮টা ১১ মিনিট নাগাদ ট্যুইটারে তাঁর এই ভিডিও পোস্ট হওইয়ার পর থেকেই নেটিজেনদের আক্রমনের মুখে পড়েন তিনি। সাথে সাথেই এই ট্যুইটের রিট্যুইট করেন প্রায় ৭ হাজার জন। কি করে একজন আইপিএস সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন মন্তব্য করতে পারেন তা নিয়ে শুরু হয় একের পর এক প্রশ্ন। একজন ব্যাঙ্গাত্মক কমেন্ট করে বলেন, ২০১৪ সাল থেকে সূর্য ‘বাহ মোদিজি বাহ’ও বলছে। এমনকি তাঁর আইপিএস পাস করা ও উপরাজ্যপাল হওয়া নিয়েও প্রশ্ন তোলেন অনেকে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে নাসার বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেন, সূর্য একেবারেই নিশ্চুপ নয়। সূর্যের হৃদস্পন্দনের মতো মৃদু একধরনের শব্দ অনুভব করেছেন বিজ্ঞানীরা। তাঁদের এই আবিষ্কার গবেষনার ক্ষেত্রে এক নতুন পথের সন্ধান দিলেও কোনভাবেই সূর্যের ‘ওম’ উচ্চারনের বিষয়টি উল্লেখ করেনি নাসা। তবে নাসার সেই আবিষ্কারে নয়া সংযোজন ঘটিয়েছেন হোয়াটসঅ্যাপ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকেরা। নাসা থেকে পাওয়া ভিডিওটিকে তাঁরা এডিট করে সেখানে ‘ওম’ শব্দটি প্রয়োগ করে তা ছড়িয়ে দেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। এর পর থেকেই ভিডিওটি ব্যপক পরিমানে শেয়ার হতে থাকে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এবার তাঁদের পথে হেঁটেই ভিডিওর সত্যতা যাচাই না করেই সেই ভিডিও শেয়ার করলেন পদুচেরির উপরাজ্যপাল কিরণ বেদী।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.