কীভাবে ভোটার আইডি-র সঙ্গে মোবাইল নম্বর সংযুক্ত করবেন? রইল পদ্ধতি

কীভাবে ভোটার আইডি-র সঙ্গে মোবাইল নম্বর সংযুক্ত করবেন? রইল পদ্ধতি
কীভাবে ভোটার আইডি-র সঙ্গে মোবাইল নম্বর সংযুক্ত করবেন? রইল পদ্ধতি

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ সামনেই বাংলায় বিধানসভা নির্বাচন। আর এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে জোরদার রাজনৈতিক প্রচার। এখনও যারা ভোটার আইডি কার্ডের সঙ্গে নিজেদের মোবাইল নম্বর লিঙ্ক বা সংযুক্ত করেননি, তাঁদের জন্য এই প্রতিবেদন।

জানেন কি, ভোটার আইডি কার্ডের সঙ্গে মোবাইল নম্বর লিঙ্ক করলে আপনি অনলাইনে ভোটার কার্ডের সমস্ত তথ্য আপডেট করতে পারবেন। তাছাড়াও মোবাইল নম্বরের সঙ্গে ভোটার আইডি লিঙ্ক করলে অনলাইনে নিজেকে ‘Electors Verification Program’-এর জন্য নেভিগেটও করতে পারবেন। তাহলে আর দেরি নয়!

বর্তমান সময়ে, ভোটার কার্ডের সঙ্গে মোবাইল নম্বর লিঙ্ক করাটা খুবই জরুরি। তাই আর দেরি না করে, এখনই ভোটার আইডির সঙ্গে মোবাইল নম্বর লিঙ্ক করে নিন। এর পদ্ধতিও খুব একটা জটিল হয়, খুব কম সময়ের মধ্যেই পুরো প্রক্রিয়াটা সম্পূর্ণ হয়ে যাবে। এখন ভাবছেন তো, কীভাবে করবেন এই সংযুক্তিকরণ? তাহলে জেনে নিন এর প্রক্রিয়া।

এবার আসা যাক, কীভাবে ভোটার কার্ডের সঙ্গে মোবাইল নম্বর লিঙ্ক করবেন, সেই পদ্ধতি প্রসঙ্গে।

প্রথম পদ্ধতি- এর জন্য প্রথমেই আপনাকে যেতে হবে National Voters’ Services Portal-এ।

দ্বিতীয় পদ্ধতি- এবার ভোটার আইডির সঙ্গে মোবাইল নম্বর লিঙ্ক করতে আপনাকে National Voters’ Services Portal-এ গিয়ে রেজিস্টার করতে হবে। আর রেজিস্টার করতে গেলে, প্রথমেই ‘Login’ সেকশনে নেভিগেট করতে হবে এবং ‘Don’t have account, Register as a new user’ অপশনে ক্লিক করতে হবে।

তৃতীয় পদ্ধতি- এরপর আপনাকে নিজের মোবাইল নম্বরটি দিতে হবে নির্দিষ্ট করা ‘Mobile no’ সেকশনে গিয়ে।

চতুর্থ পদ্ধতি- মোবাইল নম্বর দিলেই, নিশ্চিত হওয়ার জন্য আপনার কাছে captcha চাওয়া হবে, এরপর সেটি দিয়ে দিন।

পঞ্চম পদ্ধতি- এবার আপনার মোবাইল নম্বরে ‘One Time Password’ পাওয়ার জন্য ‘Send OTP’ অপশনে ক্লিক করুন। OTP পেয়ে গেলে, সঠিক স্থানে তা দিয়ে দিন।

ষষ্ঠ পদ্ধতি- এবার আপনাকে ‘I have EPIC number’ অপশনে ক্লিক করতে হবে এবং নিজের প্রিন্টেড ভোটার আইডি কার্ড থেকে ‘EPIC number’ দিতে হবে। যদি আপনার কাছে EPIC number না থাকে, তাহলে তখন ‘I don’t have EPIC number’ অপশনে ক্লিক করতে হবে এবং ‘First name’ ও ‘Last name’ এই দুটি দিয়ে পুরো প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করতে হবে।

সপ্তম পদ্ধতি- এবার নিজের ইমেল আইডি দিন, যেখানে এ সংক্রান্ত আপনি সমস্ত আপডেট পেতে চাইছেন।

অষ্টম পদ্ধতি- নিজের পছন্দ মতো একটি পাসওয়ার্ড দিন এবং পরে লগইন করে, আপনার দেওয়া সেই পাসওয়ার্ড নিশ্চিত করুন। তবে, সেই পাসওয়ার্ড বাছাই করার আগে কয়েকটা বিষয় আপনাকে বিবেচনার মধ্যে রাখতে হবে। ১) আপনার পাসওয়ার্ডে অন্তত ৬টি ক্যারেক্টার থাকতে হবে। ২) আপনার পাসওয়ার্ডে অন্ততপক্ষে একটা ডিজিট (‘0’-‘9’)-এর মধ্যে হতে হবে। ৩) আপনার পাসওয়ার্ডে কমপক্ষে একটা বিশেষ ক্যারেক্টার থাকতে হবে (যেমন- ‘@’, ‘#’, ‘$’, ‘%’, ‘&’)। ৪) অবশ্যই মাথায় রাখবেন, যাতে আপনার পাসওয়ার্ডে যেন একটা আপারকেসের ক্যারেক্টার থাকে (‘A’-‘Z’)।

নবম পদ্ধতি- সমস্ত তথ্য দেওয়া হয়ে গেলেই, আপনাকে ভোটার আইডি কার্ডের সঙ্গে মোবাইল নম্বর লিঙ্কের জন্য ‘Register’ অপশনে ক্লিক করতে হবে। উল্লেখ্য, একবার আপনি National Voters’ Services Portal-এর রেজিস্টার্ড ইউজার হয়ে গেলেই, আপনার Voter ID-র এই সব দেওয়া তথ্য আপনি চাইলেই অনলাইনে এডিট বা আপডেট করতে পারবেন। তাহলে আর দেরি কেন!

আরো পড়ুনঃ   ঋতুমতী অবস্থায় করেছিলেন সরস্বতী পুজো, এবার বিয়ের সম্প্রদানে ডাক পেলেন রায়গঞ্জের ঊষশী!