একমাসের মধ্যে তৃতীয়বার বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম! সাধারণের কপালে চিন্তার ভাঁজ আরও স্পষ্ট

একমাসের মধ্যে তৃতীয়বার বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম! সাধারণের কপালে চিন্তার ভাঁজ আরও স্পষ্ট
একমাসের মধ্যে তৃতীয়বার বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম! সাধারণের কপালে চিন্তার ভাঁজ আরও স্পষ্ট

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ এই নিয়ে চলতি মাসে তৃতীয়বার বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম। বুধবার মধ্যরাত থেকেই বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম। এই মুহূর্তে রান্নার গ্যাসের দাম বেড়েছে একধাক্কায় অনেকটা। সিলিন্ডার পিছু ২৫ টাকা। এই নিয়ে ফেব্রুয়ারিতেই পরপর তিনবার বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম। আর তিনবারে মোট ১০০ টাকা দাম বেড়েছে। এই মুহূর্তে কলকাতায় সিলিন্ডার পিছু রান্নার গ্যাসের দাম বেড়ে হল ৮২০ টাকা ৫০ পয়সা।

ফলে আরও মহার্ঘ হল রান্নার গ্যাস। স্বভাবতই মধ্যবিত্তের কপালে চিন্তার ভাঁজ আরও স্পষ্ট হচ্ছে। উল্লেখ্য, রাষ্ট্রায়ত্ত তেল সংস্থাগুলি এখন নিয়ম করে মাসের শুরুতেই রান্নার গ্যাসের পর্যালোচনা করে থাকে। প্রতি মাসের শুরুতেই জানিয়ে দেওয়া হয় সিলিন্ডারের ধার্য হওয়া নতুন দাম। তবে, চলতি মাসে এই নিয়ে তিনবার বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম। এর আগে যথাক্রমে ৪ ফেব্রুয়ারি এবং ১৫ ফেব্রুয়ারি বেড়েছিল রান্নার গ্যাসের দাম। প্রথমে ১৪ কেজি ২০০ গ্রাম এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বেড়ে হয় ৭৪৫ টাকা ৫০ পয়সা। যার দাম আগে ছিল ৭২০ টাকা ৫০ পয়সা। এরপর দ্বিতীয় ধাপে সিলিন্ডার প্রতি ৫০ টাকা বাড়ে রান্নার গ্যাসের দাম। রান্নার গ্যাসের দাম হয় ৭৯৫ টাকা ৫০ পয়সা।

এদিকে পেট্রল এবং ডিজেলের দাম গত কয়েকদিন ধরে ক্রমাগত বাড়ছে। আর তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে রান্নার গ্যাসের দামও। তার প্রধান কারণ, রান্নার গ্যাস তৈরি হয় অপরিশোধিত পেট্রোলিয়াম থেকেই। এমনিতেই করোনার কারণে দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ভেঙে পড়েছে, বহু মানুষ কাজ হারিয়েছেন। তার উপর রান্নার গ্যাসের দাম ৮০০ পেরিয়ে যাওয়ায় পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে উঠছে সাধারণ মানুষের জন্য। এই মুহূর্তে বিরোধীরাও এই বিষয়ে সোচ্চার হয়েছেন।

এর জেরে দেশের শাসকদলের প্রতি ক্ষোভে ফুঁসছে সাধারণ মানুষ। এই পরিস্থিতিতে ভোটের মুখে কেন্দ্র সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করতে এবং পেট্রল, ডিজেল এবং রান্নার গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ প্রদর্শনে অভিনব পথ গ্রহণ করেছে রাজ্যের শাসকদল। যার নেতৃত্ব দেবেন খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার হাজরা থেকে ইলেকট্রিক স্কুটিতে চেপে রাজ্যের সচিবালয় নবান্নে যাবেন তিনি। দলনেত্রীকে পিছনের আসনে বসিয়ে স্কুটার চালাবেন ফিরহাদ হাকিম।

সূত্রের খবর, আগামীকাল সকাল ১১ টা নাগাদ হাজরা থেকে ইলেকট্রিক স্কুটারে নবান্নের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করার কথা মুখ্যমন্ত্রীর। চালকের দায়িত্বে থাকবেন রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। পেট্রল এবং ডিজেল ক্রমাগত দাম বাড়ার কারণে এই প্রতিবাদ। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে রান্নার গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধিও। অবশ্য এটাই প্রথমবার নয়। এর আগে নন্দীগ্রাম আন্দোলনের সময়ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এভাবে দু’চাকার যানে সফর করতে দেখা গেছে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, রাজনীতির লড়াইয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে টেক্কা দেওয়া মোটেও সহজ কাজ নয়। একেবারে রাজপথ থেকে গলি, জনতার কণ্ঠস্বরকে দেশের শাসকের কান পর্যন্ত তুলে দিতে তাঁর ক্ষমতা অপরিসীম। কাজেই ভোটের আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যদি এই জ্বালানি এবং রান্নার গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধিকে হাতিয়ার করে, প্রতিবাদে পথে নামেন, তাহলে কেন্দ্রের মোদী সরকারের উপর যে চাপ বাড়বে, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.