নাদুসনুদুস, ফানুসফানুস চেহারায় হবে না, অমিত শাহকে কটাক্ষ মমতার

নাদুসনুদুস, ফানুসফানুস চেহারায় হবে না, অমিত শাহকে কটাক্ষ মমতার
ছবি সৌজন্যেঃ মমতা ব্যানার্জি- ফাইল ছবি, অমিত শাহ ছবি সৌজন্যে- ফেসবুক

“কিষানদের সামলানোর ক্ষমতা নেই, মমতাদিকে সামলাবে! এই চেহারায় হবে না। ও তো ফোলাফোলা চেহারা। বেশ নাদুসনুদুস, ফানুসফানুস চেহারা। যাও গিয়ে বাড়িতে ঘর পোছো।” বৃহস্পতিবার এই মর্মেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে আক্রমন করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যপাধ্যায়।

এদিন দুপুরে অভিষেকের লোকসভা কেন্দ্র ডায়মন্ডহারবারের পৈলানে তৃণমূলের কর্মী সম্মেলনে যোগ দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “ডান্ডার সাথে লড়াই করো। কেন্দ্রীয় পুলিশ আসলে বাড়ির মেয়েদের বের করে দেবেন। ভয় পাবেন না। একটু মেয়েদের সামনে রাখুন। একটু খুন্তিটা ঠেকিয়ে দেবে। এলাকায় নজর রাখুন।”

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “এলাকা দেখে দেখে বাইরের গুন্ডাদের এনে আপনাদের এলাকা দখল করা হচ্ছে। বহিরাগত গুন্ডাদের ঢুকতে দেবেন না। কয়েক হাজার বহিরাগত গুন্ডা নিয়ে আসছে বিজেপি। রথযাত্রা ফ্লপ। সভা ফ্লপ। প্রতিদিন কেউ না কেউ হামলা করে, আহারে কত গুরুত্বপূর্ণ লোক! আমরা হামলা করি না। পুরনোরা তো কেউ নেই। এঁচোড়ে পাকা বসে আছে। ওরাই বিজেপিকে খেয়ে নিতে সিদ্ধহস্ত। তোমাদের নিয়ে মাথা ঘামানোর প্রয়োজন নেই। ২০২১ সালে সব রেকর্ড ভাঙব। বাংলাকে ধমকালে চমকালে বাংলা গর্জায়। আমি মানুষের কাছে মাথানত করি। বিজেপির কাছে মাথানত করার থেকে মৃত্যু ভালো।’

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “মা বোনেদের বলব, বাড়ি গিয়ে উল্টোপাল্টা বললে কান মুলে দেবেন। কান মুলে দিলে কেস হবে না। না পারবে কাউকে দেখাতে না পারবে কেস করতে। খালি মিথ্যা কথা। আমি কখনও দেখিনি, দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এত মিথ্যা কথা বলে!

এনআরসি, এনপিআর, সিএএ কিচ্ছু হবে না। দক্ষিণবঙ্গে বলবে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের মদত দিচ্ছি। উত্তরবঙ্গে বলবে সিএএ চাই। আগে নিজেদের মা-বাবাদের সার্টিফিকেট দেখাও।  

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “ফাইভস্টার থেকে খাবার আনছে। একটু ছিঁড়ে মুখে দিচ্ছে। ওসব ভাঁওতা। সব ছবি তোলার জন্য করছে। উত্তরপ্রদেশে ৭টি শিশুকন্যার মৃত্যু নিয়ে একবারও বলেছো। দিল্লিতে দাঙ্গায় এত লোক মারা গিয়েছে, একটাও কথা বলেছো। কৃষকদের রাস্তায় পেরেক পুঁতছো। সে নাকি বাংলা দখল করবে? আগে দিল্লি সামলাও।“

আরো পড়ুনঃ   ভোটের নির্ঘণ্ট ঘোষণা হতেই, মাঠে নেমে পড়ল আধাসামরিক বাহিনী, মালদার হরিশ্চন্দ্রপুরে শুরু রুটমার্চ