হুহু করে বাড়ছে সংক্রমণ! করোনা পরিস্থিতিতে নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত নিলেন মমতা

হুহু করে বাড়ছে সংক্রমণ! করোনা পরিস্থিতিতে নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত নিলেন মমতা
হুহু করে বাড়ছে সংক্রমণ! করোনা পরিস্থিতিতে নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত নিলেন মমতা

ফের করোনার বাড়বাড়ন্তে নাজেহাল দেশ তথা রাজ্য। এর মধ্যে আর কোন বড় জনসমাবেশ করবে না বলে ইতিমধ্যেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বামফ্রন্ট। এবার খানিকটা সেই একই পথে হাঁটলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জানালেন কলকাতা শহরে আর কোন বড় জনসভা করবেন না তিনি। কারণ তার মধ্যে তিনি এলে সেই জনসভায় ভিড় বেশি হয়। তাই দল নিজেদের মতো করে ছোট করে জনসভা করবে।

রবিবার এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, রাজ্যে যেভাবে করোনা বাড়ছে তাতে কলকাতায় আর কোনো বড় সভা করা যাবে না। তিনি বলেন,”আমার চব্বিশটা মিটিং নষ্ট হয়েছে। তবু চেষ্টা করব আধঘণ্টায় মিটিং শেষ করে দিতে। আর কলকাতায় কোন বড় সভা করবো না। ছোট ছোট র‍্যালি হবে।” পাশাপাশি নিজের বক্তৃতার সময় তিনি কমিয়ে দেবেন বলে জানিয়েছেন। তবে ২৬ এপ্রিল বিডন স্ট্রিটে একটি সভা রয়েছে তার। এরপর দলের তরফে ছোটখাটো জনসভার আয়োজন করা হলেও সেখানে তিনি উপস্থিত থাকবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন।

এদিকে দেশে যেভাবে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করছে তার জন্য এক প্রকার কেন্দ্র সরকারকেই দায়ী করেছেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী দাবি করে জানিয়েছেন, “গত ছয় মাস সেভাবে করো না হয়নি। সেই ছয় মাসকে অবহেলা করা হয়েছে। তখন পরিকল্পনা করলে আগামী ছয় মাস ভালো কাটত”। এরপর এ অভিযোগ করে তিনি বলেন, “ওষুধের যোগান নেই, অক্সিজেনের যোগান নেই। আশিটা দেশকে আমরা ওষুধ দিয়ে দিয়েছি। কিন্তু নিজের দেশের দরকারটা তো আগে বুঝতে হবে।দূরদর্শিতার অভাব না থাকলে আমরা আজ এত বিপদে পড়তাম না হঠাৎ করে”।

এদিন নির্বাচন কমিশনকেও একহাত নিয়েছেন তিনি। এই সংক্রমনের মরশুমে বারবার বাকি তিন দফা ভোট একসঙ্গে করানোর দাবি জানিয়েছিল তৃণমূল। কিন্তু নির্বাচন কমিশন সাফ জানিয়ে দিয়েছে পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী হবে ভোট। এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “আমরা শেষ তিন দফা একসঙ্গে ভোট করার কথা বলেছিলাম। কিন্তু নির্বাচন কমিশন শুধু বিজেপির কথা শুনে আমাদের কথা শোনে না।”

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.