মুখ্যমন্ত্রীর জোরাজুরিতে! অবশেষে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়িতে পৌঁছালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

মুখ্যমন্ত্রীর জোরাজুরিতে! অবশেষে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়িতে পৌঁছালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
মুখ্যমন্ত্রীর জোরাজুরিতে! অবশেষে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়িতে পৌঁছালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ অবশেষে মুখ্যমন্ত্রীর ইচ্ছেকে মান্যতা দিলেন চিকিৎসকরা। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

১০ তারিখ নন্দীগ্রামে মনোনয়ন জমা দিয়ে পুজো দিতে যাওয়ার সময় আহত হন তিনি, চোট লাগে পায়ে এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে। এরপরেই তাঁকে কলকাতায় নিয়ে আসা হয় তড়িঘড়ি। ভর্তি করা হয় এসএসকেএম হাসপাতালে। সেখানেই চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

শুক্রবার সন্ধ্যে নাগাদ তাঁকে ছুটি দেওয়া হয়। জানা যাচ্ছে, তাঁর বাড়ি গিয়েই আপাতত চিকিৎসা করবেন চিকিৎসকরা। আপাতত হুইল চেয়ারে চলফেরা করবেন তিনি। এদিন দফায় দফায় তাঁকে দেখতে হাসপাতালে আসেন অভিষেক পত্নী রুজিরা নারুলা বন্দ্যোপাধ্যায়, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, ফিরহাদ হাকিম, কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি টি বি রাধা কৃষ্ণন। পাশাপাশি হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার সময়ও সঙ্গে ছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং ফিরহাদ হাকিম। এদিন তিনি পায়ে চটি পরার ইচ্ছে প্রকাশ করেন। কিন্তু পায়ে প্লাস্টার থাকার কারণে পরতে অসুবিধা হওয়ায় তাঁর জন্য বিশেষ চটির ব্যবস্থা করা হয়।

উল্লেখ্য, আগামী ১৪ তারিখ দলীয় ইস্তেহার প্রকাশ করবে তৃণমূল। সেই অনুষ্ঠানে থাকবেন তৃণমূল সুপ্রিমো স্বয়ং। আপাতত মুখ্যমন্ত্রীর জেলা সফর স্থগিত করা হয়েছে। যদিও তিনি গতকাল ভিডিও বার্তা দিয়ে জানিয়েছেন, হুইল চেয়ারেই প্রচার সারবেন তিনি।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর অবস্থা সন্তোষজনক। এরপরেও চিকিৎসকরা জানিয়েছেন যে, ৪৮ ঘণ্টার একটা পর্যবেক্ষণ প্রয়োজন ছিল। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী জোরাজুরিতে এবং বারবার তিনি বাড়ি ফেরার ইচ্ছে প্রকাশ করায়, তাঁকে ছুটি দেওয়া হয়েছে। আজ সকালে তাঁর প্লাস্টার খুলে আহত স্থান পরীক্ষা করা হয়। দেখা যায় পায়ের গোড়ালিতে যেখানে আঘাত লেগেছিল সেই জায়গার ফোলাভাবে খানিকটা কমেছে। এরপর পুনরায় আবার প্লাস্টার করা হয়।

চিকিৎসকদের পক্ষ থেকে বেশ কিছু বিধিনিষেধ মেনে চলাচল করতে বলা হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীকে। সাত দিন পর, তাঁকে পুনরায় চেকআপের জন্য ডেট দিয়েছেন চিকিৎসকরা। এদিকে মুখ্যমন্ত্রীর জেলা সফর স্থগিত করা হলেও, তিনি ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন যে, হুইলচেয়ারে করেই তিনি নির্বাচনী প্রচার সারবেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.