এক উল্কায় কোটিপতি এই যুবক! কীভাবে? রইল বিস্তারিত

এক উল্কায় কোটিপতি এই যুবক! কীভাবে? রইল বিস্তারিত
এক উল্কায় কোটিপতি এই যুবক! কীভাবে? রইল বিস্তারিত

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ কখন কার কপাল যে কীভাবে খোলে, তা কেউই বলতে পারে না! দরিদ্র দিনমজুর একলাফে রাতারাতি হয়ে গেলেন কোটিপতি। একেই বলে কপাল। এভাবেও ঘোরে ভাগ্যের চাকা, ইন্দোনেশিয়ার যুবকের কাহিনি তারই জ্বলন্ত উদাহরণ। আসলে ভগবান যখন কারও উপর সদয় হন, তখন সেই ব্যক্তির জীবনেও সব ভালই হতে থাকে।

কেমন করে বছর ৩৩-এর এই যুবক কোটিপতি হলেন জানেন? তাহলেই শুনুন, ইন্দোনেশিয়ার সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর, উত্তর সুমাত্রার কোলাঙ্গের বাসিন্দা জোসুয়া হুটাগালুঙ্গ বাড়ির বাইরে কাজ করছিলেন। আচমকাই আকাশ থেকে দ্রুত গতিতে উল্কা এসে টিনের ছাদ ভেঙে ঘরের মধ্যে পড়ে।

জোসুয়া এরপর, ঘরের ভিতরে গিয়ে দেখেন পাথর খণ্ডের মতো কিছু তাঁর ঘরের মেঝেতে পড়ে রয়েছে। তখনও গরম ছিল পাথর খণ্ডটি। পড়ে সেটা ঠাণ্ডা হলে জোসুয়া সেটিকে নিয়ে প্রশাসনিক আধিকারিকদের সঙ্গে দেখা করেন এবং গোটা ঘটনা খুলে বলেন।

এরপর পাথর খণ্ডটি পরীক্ষা করে জানা যায় যে, সেটি ৪ বিলিয়ন বছরের পুরনো একটি উল্কা পিণ্ডের অংশ। যার মূল্য হল প্রতি গ্রাম ৮৭৫ ডলার। পরিষ্কার করে বললে, ওই উল্কাপিণ্ড বিক্রি করে জোসুয়ার ১০ কোটি টাকার বেশি আয় হবে।

এই পুরো ঘটনা সম্পর্কে জোসুয়া জানিয়েছেন যে, বাড়ির বাইরে বসে তিনি কফিন বানাচ্ছিলেন, যা তাঁর পেশা।আচমকাই অসম্ভব জোরে আওয়াজ হয় এবং তাঁর ঘরের টিনের চালে কিছু একটা পড়ে, তিনি বুঝতে পারে। ভিতরে গিয়ে জোসুয়া দেখেন যে, পাথরের মতো কিছু একটা মাটিতে গেঁথে রয়েছে। পরে ্তা ঠাণ্ডা হলে, বস্তুটি নিয়ে দেখা করে স্থানীয় প্রশাসনিক আধিকারিকদের সঙ্গে। সেখান থেকেই তিনি জানতে পারেন বস্তুটি সম্পর্কে।

পাশাপাশি এও জানতে পারেন যে, ওই বস্তুটি বিক্রি করে তিনি ১০ কোটি টাকা পাবেন। এই খবরে যারপরনাই আনন্দে আত্মহারা বছর ৩৩-এর জোসুয়া। এই টাকা থেকে কিছুটা দিয়ে তিনি নিজ এলাকায় একটি গির্জা বানাতে চান। এমনটাই ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন রাতারাতি দরিদ্র দিনমজুর থেকে কোটিপতি হওয়া জোসুয়া।

এই ঘটনার কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ পাওয়ায়, নেটিজেনরাও কার্যত বাক্যহারা।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.