চোখ রাঙাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় যশ! মোকাবিলায় বড় সিদ্ধান্ত নিলেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস

চোখ রাঙাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় যশ! মোকাবিলায় বড় সিদ্ধান্ত নিলেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস
চোখ রাঙাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় যশ! মোকাবিলায় বড় সিদ্ধান্ত নিলেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ আবারও চোখ রাঙাচ্ছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়। নাম ‘যশ’। উল্লেখ্য, গত বছর ২০ মে বাংলার উপর আছড়ে পড়েছিল শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আমফান। তছনছ করে দিয়েছিল দক্ষিণবঙ্গকে। আর এবার যশ। এর তীব্রতা কতোটা, তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে, এবারও প্রবল ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।

কয়েকদিনের মধ্যেই রাজ্যে আছড়ে পড়তে চলেছে ঘূর্ণিঝড় যশ। তাই গত বছরের আমফান থেকে শিক্ষা নিয়ে, এবারে ‘জশ’-এর মোকাবিলায় আগে থেকেই প্রস্তুতি শুরু করেছে প্রশাসন। জানা গিয়েছে, উপকূলবর্তী এলাকায় নজরদারি ও মাইকিং বাড়ানো হয়েছে। হলদিয়ায় ভারতীয় উপকূলরক্ষী বাহিনীর তৎপরতাও তুঙ্গে এই মুহূর্তে।

এদিকে পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে বড় সিদ্ধান্ত নিলেন বিদ্যুৎমন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। ঘূর্ণিঝড় যশের মোকাবিলায় প্রস্তুতিতে কোনও খামতি রাখতে চাইছে না প্রশাসন। সেই কারণে ইতিমধ্যেই রাজ্যের বিদ্যুৎ দফতরের সমস্ত ছুটি বাতিল ঘোষণা করলেন সদ্য নিযুক্ত বিদ্যুৎমন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস।

আজ দফতরের আধিকারিক ও সিইএসসির আধিকারিকদের সঙ্গে ‘যশ’ নিয়ে বৈঠক করেন বিদ্যুৎমন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। তিনি এই বৈঠকের পর জানিয়েছেন যে, রাজ্যের বিদ্যুৎ দফতর সম্পূর্ণরূপে প্রস্তুত ‘যশ’-এর মোকাবিলায়। আজকের এই বৈঠকে উত্তর ২৪ পরগণা, দক্ষিণ ২৪ পরগণা, হাওড়া, পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর, হুগলি- এই জেলাগুলিকে বিশেষ প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

এই জেলাগুলোর প্রতিটি ব্লকে ২৫ তারিখ থেকে ৩ টি হাই- টেনশন এবং ৩ টি করে লো- টেনশন দল গঠন করা হচ্ছে। এই প্রতিটি দলে ৬ থেকে ৭ জন করে থাকবে। ১৮৩০৫ টি ইলেক্ট্রিক পোল, ২০৫৫ কিমি তার পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে ইতিমধ্যেই। এছাড়াও কন্ট্রোল রুম খোলা থাকবে ২৫ তারিখ থেকে। এই কন্ট্রোল রুমের নম্বর হল- 8900793503 ও 8900793504। এই দলগুলি বিডিওর নেতৃত্বাধীনে থাকবে। এছাড়াও হাওড়া,মহেশতলা ও বজবজ এর ক্ষেত্রে সিইএসসি এলাকায় ২ টি করে করে দল থাকবে থানা ভিত্তিক।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এর আগেও রাজ্য জুড়ে ঝড়বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকায়, আগে থেকেই প্রস্তুতি সেরে রাখার পক্ষে ছিল রাজ্য প্রশাসন। সেই কারণেই ১৩ মে, গত বৃহস্পতিবার বিদ্যুৎ দফতরের আধিকারিকদের নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করেছিলেন সদ্য নিযুক্ত বিদ্যুৎমন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। রাজ্যের বিদ্যুতের হাইটেনসন লাইন ছিড়ে বিদ্যুৎ বিভ্রাট ঘটলে, তার আগাম প্রস্তুতি হিসেবে কী কী ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে, সেই বিষয়ে আলোচনা হয়।

এদিকে, ইতিমধ্যেই হলদিয়ায় অবস্থিত ভারতীয় উপকূলরক্ষী বাহিনীর কার্যালয় এবং কন্ট্রোল রুম থেকে মৎস্যজীবীদের উদ্দেশে সতর্কতামূলক প্রচার করা শুরু হয়েছে। যাঁরা সমুদ্রে গিয়েছেন তাঁদের ২২ মে-এর মধ্যে ফিরে আসতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ভারতীয় উপকূলরক্ষী বাহিনীর (Indian Coastal Guard) ডিআইজি জানিয়েছেন, যশ-এর মোকাবিলায় সবরকমভাবে তৈরি বাহিনী। ইতিমধ্যেই বাহিনীর পক্ষ থেকে গঠন করা হয়েছে ‘কুইক রেসপন্স টিম’। প্রস্তুত রাখা হয়েছে ১৩ টি জাহাজ, বোট এবং স্পিড বোট।