ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি মুকুলের! বাড়ি থেকে উড়ে গেল মোদি-শাহের ছবি সমৃদ্ধ পোস্টার!

ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি মুকুলের! বাড়ি থেকে উড়ে গেল মোদি-শাহের ছবি সমৃদ্ধ পোস্টার!
ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি মুকুলের! বাড়ি থেকে উড়ে গেল মোদি-শাহের ছবি সমৃদ্ধ পোস্টার!

দিল্লিতে অতিরিক্ত বৃষ্টিপাতের জেরে ডুবে গিয়েছিল রাস্তাঘাট। কিন্তু ঝড়ে সেভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি রাজধানী। তবে এই দিক থেকে ব্যতিক্রম সাউথ অ্যাভিনিউয়ের ১৮১ নম্বর ঠিকানায় অবস্থিত বাড়িটি। এই ঠিকানায় অবস্থিত বাড়িটি রাজ্য বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের। তাঁর এই দিল্লির বাড়ি থেকে ঝড়ে উড়ে গিয়েছে বিজেপির যাবতীয় প্লাকার্ড, পোস্টার। এমনকি নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহের ছবিও উড়িয়ে নিয়ে গেছে বেপরোয়া ঝড়। কিন্তু দিল্লিতে হওয়া ঝড়-বৃষ্টির দাপট কি এত বেশি ছিল? নাকি ঝড় উঠেছে রাজ্য বিজেপির অন্দরে? উঠছে প্রশ্ন।

কখনও চোখের ইনফেকশন, আবার কখনও নিজের বাসভবনে কোপ পড়ছে ঝড়ের, সময়টা ভাল যাচ্ছে না মুকুল রায়ের। আর এইসব দুর্ঘটনার সূক্ষ্ম যোগাযোগ রয়েছে বিজেপির সঙ্গে।

চোখের ইনফেকশনের জন্য দিল্লিতে চলতে থাকা কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে বঙ্গ বিজেপির বৈঠক শেষ হওয়ার আগেই রাজ্যে ফিরে আসতে হয়েছে মুকুল রায়কে। অন্যদিকে ঝড়ে উড়ে গেছে বিজেপির পোস্টার। তবে কি মুকুল রায়ের সঙ্গে ঘটে চলা দুর্ঘটনাগুলিতেও আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে রয়েছে বিজেপি সংযোগ? প্রশ্ন তুলছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

রাজ্য বিজেপি নেতাদের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতাদের একাংশের সঙ্গে মুকুল রায়ের মনোমালিন্যের জল্পনা তুঙ্গে। চলতি সপ্তাহ জুড়ে দিল্লিতে বিধানসভা ভোটের প্রস্তুতি নিয়ে বৈঠকে বসেছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব এবং রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব। বৈঠকের প্রথম দিনে মুকুল রায় উপস্থিত থাকলেও শুক্রবার তিনি কলকাতায় ফিরে আসেন। হঠাৎ করে কেন বৈঠক শেষ না করে আগেভাগে ফিরে এলেন তিনি? তা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। যদিও এই বিজেপি নেতার দাবি, চোখের ইনফেকশনের জন্যই ফেরত এসেছেন তিনি।

এরই মধ্যে তাঁর দিল্লির বাসভবন থেকে বিজেপির যাবতীয় পোস্টার গায়েব হয়ে যাওয়ার ঘটনায় এই জল্পনা তুঙ্গে উঠেছে। সেই সমস্ত জল্পনা উড়িয়ে দিয়ে মুকুল রায়ের দাবি ঝড়, বৃষ্টি হয়েছিল। সেই ঝড় বৃষ্টিতে নষ্ট হয়ে গেছে সব পোস্টার। আর এই উত্তরের পরিপ্রেক্ষিতে পাল্টা প্রশ্ন তুলছেন অভিজ্ঞ মহল। তাঁদের কথায়, দিল্লিতে ভারী বৃষ্টিপাত হলেও ঝড় হয়নি বিশেষ। তাহলে বিজেপির পোস্টার উড়ে গেল কী করে?

বিধানসভা নির্বাচনের আগে মুকুল যদি বিজেপিতে সক্রিয়ভাবে কাজ না করেন, সেক্ষেত্রে ভোটের ফলাফলের ওপরে তার গভীর প্রভাব পড়তে পারে, এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। যদিও বিজেপি সূত্রে খবর ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে বিজেপি নেতৃত্ব। সে ক্ষেত্রে মুকুল রায়ের মতো দক্ষ নেতাকে কখনোই হাতছাড়া করবে না তারা। আর বর্তমান পরিস্থিতিতে শাসক দলে মুকুল রায় প্রত্যাবর্তন একপ্রকার অসম্ভব।

যদিও রাজনৈতিক মহলের বক্তব্য, রাজনীতিতে অসম্ভব বলে কিছু হয় না। স্বাভাবিকভাবেই মুকুল রায় রাজনৈতিক ভবিষ্যত কী হবে, তা নিয়ে জল্পনা কিন্তু তুঙ্গে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.