চতুর্থ সন্তানও কন্যা! প্রসবের পরই সদ্যোজাতকে গলা টিপে হত্যার অভিযোগ মায়ের বিরুদ্ধে!

চতুর্থ সন্তানও কন্যা! প্রসবের পরই সদ্যোজাতকে গলা টিপে হত্যার অভিযোগ মায়ের বিরুদ্ধে!
চতুর্থ সন্তানও কন্যা! প্রসবের পরই সদ্যোজাতকে গলা টিপে হত্যার অভিযোগ মায়ের বিরুদ্ধে! / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ কন্যা সন্তানকে আজকের সময়েও ‘বোঝা’ মনে করা হয়। এরপর যদি একের অধিক কন্যা সন্তান থাকে তাহলে তো কথাই নেই। এক্ষেত্রে সন্তানের মায়ের উপর পরিবারের সব ক্ষোভ গিয়ে পড়ে। এখনও কন্যা সন্তানকে ঘৃণার নজরে দেখা হয়, গর্ভেই কন্যাভ্রূণ হত্যার ঘটনা, একাধিক কন্যা সন্তান হওয়ায় সন্তান-সহ মাকে প্রাণে মেরে ফেলার মতো ঘটনা আজও শোনা যায়। আজকের শিক্ষিত, অত্যাধুনিক, বিজ্ঞানমনস্ক সমাজের এটা একটা অন্ধকার অংশ।

তবে, খোদ জন্মদাত্রী কন্যা সন্তান জন্মানোয় তাঁকে হত্যা করেছে এমন অমানবিক এবং নৃশংস ঘটনা প্রায় বিরল। বিরল হলেও এমনই ঘটনা ঘটেছে নদীয়ায়। আগেই তিনটি কন্যা সন্তান ছিল। চতুর্থ সন্তান কন্যা হওয়ায়, সদ্যোজাতর গোলা টিপে তাঁকে হত্যা করে সেফটি ট্যাংকে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ উঠল খোদ জন্মদাত্রীর বিরুদ্ধে। এই ঘটনার পর পলাতক অভিযুক্ত মা।

ঘটনার খবর পাওয়া মাত্র, সদ্যোজাত মৃতদেহ উদ্ধার করে চাপড়া থানার পুলিশ। ঘটনাটি ঘটে চাপড়া থানার বৃত্তিহুদা দক্ষিণ পাড়া এলাকায়। মৃত কন্যাসন্তানের বাবা এবং অভিযুক্ত মা এলাকারই বাসিন্দা। তাদের নাম আতিউর শেখ ও তার স্ত্রী বনফুল শেখ। আতিউর শেখ জন মজুরের কাজ করেন। আগেই তাদের তিনটি কন্যাসন্তান রয়েছে। আবার সোমবার ভোরে বাড়িতেই আতিউরের স্ত্রী বনফুল আরও এক কন্যা সন্তানের জন্ম দেয়। পরপর চারটি কন্যা সন্তান হওয়ার কারণে জন্মের পরেই মা ওই সদ্যোজাত কন্যাসন্তানটির গলাটিপে হত্যা করে সেফটি ট্যাংকে ঢুকিয়ে দেয় বলে অভিযোগ।

স্থানীয় বাসিন্দাদের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, সরকারি হাসপাতালে এলাকার আশা কর্মীদের পরিষেবা থাকা সত্ত্বেও ওই মহিলা বাড়িতে প্রসব করান। তারপর শিশু কন্যার জন্ম হতেই, তাকে খুন করে গা ঢাকা দিয়েছে। অভিযুক্ত মায়ের সন্ধান শুরু করেছে পুলিশ। ঘটনার ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।