পরিচয়পত্র বা বাসস্থান প্রমাণ না থাকার জন্য হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরানো যাবে না, নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

পরিচয়পত্র বা বাসস্থান প্রমাণ না থাকার জন্য হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরানো যাবে না, নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের
পরিচয়পত্র বা বাসস্থান প্রমাণ না থাকার জন্য হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরানো যাবে না, নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ দেশজুড়ে বেড়েই চলেছে করোনার সংক্রমণ। দেশের হাসপাতালগুলোতে বেডের অভাব, অক্সিজেনের অভাব, অক্সিজেনের অভাবে রোগীর মৃত্যু-এইসব সমস্যা লেগেই রয়েছে। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত।

দেশের এই সংকটজনক পরিস্থিতিতে, দেশের শীর্ষ আদালতের পাশাপাশি বিভিন্ন রাজ্যের হাইকোর্টগুলি হস্তক্ষেপ করেছে। করোনা মোকাবিলায় কেন্দ্রের ভূমিকা প্রশ্নের মুখে। এই পরিস্থিতিতে আবারও একবার করোনা নিয়ে কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকারগুলিকে নয়া নির্দেশিকা দিল দেশের শীর্ষ আদালত।

শুধুমাত্র পরিচয়পত্র বা বাসস্থান প্রমাণ না থাকার কারণে, হাসপাতাল থেকে কোনওভাবেই রোগীকে ফেরানো যাবে না। দিতে হবে অত্যাবশ্যকীয় ওষুধ, রবিবার কেন্দ্র এবং দেশের প্রতিটি রাজ্যকে এমনই নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট। এর পাশাপাশি বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বের বেঞ্চ কেন্দ্র সরকারকে হাসপাতালে রোগী ভর্তির ক্ষেত্রে একটি জাতীয় পলিসি আনার নির্দেশও দিয়েছে। এর জন্য কেন্দ্রকে ২ সপ্তাহের সময়ও বেঁধে দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, এই পলিসি সমস্ত সরকারি হাসপাতালগুলিকে মেনে চলতে হবে।

দেশের শীর্ষ আদালতের মতে, করোনা অতিমারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে হাসপাতালে বেড না পাওয়া অত্যন্ত বড় সমস্যা হয়ে দেখা দিয়েছে এই মুহূর্তে। আলাদা আলাদা রাজ্যে এবং তারও ভেতরে স্থানীয় প্রশাসনের পৃথক নিয়ম থাকায়, সমস্যায় পড়েছেন রোগী এবং তাঁর পরিজনেরা। এই পরিস্থিতিতে একটাই নিয়ম আনার জন্য কেন্দ্রকে নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট।

এই নির্দেশনামায় সুপ্রিম কোর্ট আরও জানিয়েছে যে, রাজ্য সরকারের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে কেন্দ্র সরকারকে অক্সিজেনের জরুরি স্টকের ব্যবস্থা করতে হবে। যেকোনো রকম জরুরি অবস্থা সামাল দেওয়া এবং অপ্রীতিকর পরিস্থিতি যাতে ঠেকানো সম্ভব হয়, তাই এই ব্যবস্থা। অক্সিজেনের এই জরুরি স্টকের জন্য কেন্দ্রকে ৪ দিন সময় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

দেশের শীর্ষ আদালতের কড়া নির্দেশ, কোনওভাবেই দেশের মানুষের জীবনকে বিপদে ফেলা যাবে না। একইসঙ্গে কোভিড সংক্রান্ত কোনও তথ্য বা সাহায্য চেয়ে যদি আবেদন করা হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়, তাহলে তা অবিলম্বে চিফ সম্পাদক, ডিজিপি, সিপিদের জানানোর নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.