‘লজ্জাজনক, অমানবিক ও হৃদয়বিদারক’! জোম্যাটোকাণ্ডে এবার ডেলিভারি বয়ের পাশে দাঁড়িয়ে বললেন পরিণীতি

‘লজ্জাজনক, অমানবিক ও হৃদয়বিদারক’! জোম্যাটোকাণ্ডে এবার ডেলিভারি বয়ের পাশে দাঁড়িয়ে বললেন পরিণীতি
‘লজ্জাজনক, অমানবিক ও হৃদয়বিদারক’! জোম্যাটোকাণ্ডে এবার ডেলিভারি বয়ের পাশে দাঁড়িয়ে বললেন পরিণীতি

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ এই মুহূর্তে জোম্যাটোকাণ্ডে উত্তাল নেটদুনিয়া। কেউ পাশে দাঁড়িয়েছেন হিতেশা চন্দ্রানীর। কেউ আবার পাশে দাঁড়িয়েছেন অভিযুক্ত ডেলিভারি বয়ের।

এবার জোম্যাটোকাণ্ডে মুখ খুললেন অভিনেত্রী পরিণীতি চোপড়া। পাশে দাঁড়ালেন জোম্যাটোকাণ্ডে ডেলিভারি বয়ের। তিনি টুইট করে লেখেন যে, ‘জোম্যাটো ইন্ডিয়া, দয়া করে সত্যিটা খুঁজে বার করুন আর সবার সামনে তা প্রকাশ করুন। যদি ওই ভদ্রলোক নির্দোষ হন (আমি বিশ্বাস করি উনি নির্দোষ) তাহলে ওই মহিলার শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক। এই ঘটনাটা লজ্জাজনক ও অমানবিক ও হৃদয়বিদারক। আমি যদি কোনওভাবে সাহায্য করতে পারি আমায় অবশ্যই জানান।’

উল্লেখ্য, গত ১০ মার্চ সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। সেই ভিডিওতে বেঙ্গালুরুর বাসিন্দা হিতেশা চন্দ্রানী নামে এক মহিলাকে বলতে শোনা যায় যে, তিনি জোম্যাটোতে খাবার অর্ডার করেছিলেন। দুপুর ৩.৩০ নাগাদ খাবার ডেলিভারি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু খাবার আসতে ৪.৩০ হয়ে যায়। এই দীর্ঘ সময়ের বিলম্বের জন্য চন্দ্রাণী জোম্যাটো এক্সিকিউটিভের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তিনি দাবি করেন, তাঁর খাবার ফ্রি করে দেওয়া হোক, নয়ত ফিরিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হোক।

এর মধ্যেই নাকি খাবার নিয়ে পৌঁছায় ডেলিভারি বয়। চন্দ্রাণীর অভিযোগ করেন, তিনি পৌঁছেই খুবই অভব্য আচরণ করেন। ডেলিভারি বয়কে দাঁড়াতে বলেন তিনি। সেই সময় ফ্রিতে বা খাবার ফিরিয়ে দেওয়া সম্ভব কিনা সে বিষয়ে কথা বলেছিলেন তিনি। কিন্তু ডেলিভারি বয় দাঁড়াতে রাজি হয়নি এবং খাবার ফিরিয়ে নিয়ে যেতেও চায়নি। এরপরই শুরু হয় তাদের মধ্যে তর্কাতর্কি। এরপরই ওই ডেলিভারি বয় সোজা চন্দ্রাণীর নাকে ঘুষি মারেন, সঙ্গে সঙ্গে তাঁর নাক দিয়ে গলগল করে রক্ত বেরোতে শুরু করে। তিনি এও জানিয়েছিলেন যে, তাঁর নাকের হাড় ভেঙে গিয়েছে। এর জন্য অপারেশন করতে হয়েছে। এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ পেতেই বেঙ্গালুরুতে খাবার সরবরাহকারী সংস্থা জোম্যাটোর ডেলিভারি বয় কামরাজকে নিয়ে শুরু হয় তুমুল বিতর্ক।

কিন্তু এর পরেই উঠে আসে নতুন তথ্য। অভিযুক্ত কামরাজ দাবি করেন, ওই মহিলাই তাঁকে জুতো নিয়ে মারতে এসেছিলেন। জুতোপেটা থেকে বাঁচতে হাত দিয়ে প্রতিরোধ করতে থাকেন কামরাজ। তাতে ওই মহিলার হাত ছিটকে গিয়ে নিজের নাকে লাগে। আঙুলে পরা আংটির ধাক্কায় নাক কেটে যায়। ফলে ওই মহিলা যে অভিযোগ করছেন, কামরাজ ঘুসি মেরে নাক ফাটিয়ে দিয়েছেন, তা সম্পূর্ণ মিথ্যে।

দু’পক্ষের বয়ান শোনার পর, এই মুহূর্তে ঘটনার তদন্তে নেমেছে জোম্যাটো। কামরাজকে সবেতন ছুটিতে পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি মামলার খরচের দায় নিয়েছে সংস্থা। এদিকে এই ঘটনা নিয়ে দুইভাগে বিভক্ত হয়েছে নেটদুনিয়া। অনেকেই সমর্থন করেছেন চন্দ্রানীর বয়ানকে। আবার অনেকেই দাবি করেছেন, জোম্যাটো বয় কামরাজ নিরপরাধ। এরপরই এই ঘটনায় মুখ খুললেন, বলিউড অভিনেত্রী পরিনীতি চোপড়া। তিনি এই ঘটনার সত্যতা দ্রুত প্রকাশ্যে আনার দাবি জানিয়েছেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.