বিশ্বের দরবারে আবারও মোদী স্তুতি! পরিবেশের স্থায়ী উন্নতিসাধনে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য পুরস্কৃত প্রধানমন্ত্রী

বিশ্বের দরবারে আবারও মোদী স্তুতি! পরিবেশের স্থায়ী উন্নতিসাধনে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য পুরস্কৃত প্রধানমন্ত্রী
বিশ্বের দরবারে আবারও মোদী স্তুতি! পরিবেশের স্থায়ী উন্নতিসাধনে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য পুরস্কৃত প্রধানমন্ত্রী / ছবি সৌজন্যে- Screenshot Facebook Live Video By Narendra Modi Official Facebook Page

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ দেশের পাঁচ রাজ্যে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের মুখে ফের মোদীর সাফল্য। বিশ্বের দরবারে ফের প্রশংসিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এবার পরিবেশের স্থায়ী উন্নতিসাধনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের এবং পরিবেশরক্ষায় বিশেষ অবদানের জন্য আন্তর্জাতিক পুরস্কারে ভূষিত হতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী। আগামী সপ্তাহে CERAWeek গ্লোবাল এনার্জি অ্যান্ড এনভায়রমেন্ট লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড পাচ্ছেন তিনি।

উল্লেখ্য, দেশের পাশাপাশি দেশের গণ্ডী ছাড়িয়ে, বিদেশেও নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্ব প্রশংসা অর্জন করেছে। কখনও টুইটারে জনপ্রিয় নেতার খেতাব, আবার কখনও প্রতিবেশীদের পাশে থাকার জন্য প্রশংসা কুড়িয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী।

অন্যদিকে, করোনা পরিস্থিতিতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে পাঠিয়েছেন করোনা ভ্যাকসিন, মানবিকতার নজির সৃষ্টি করেছেন মোদী এই টিকা পাঠিয়ে। তাঁর এই পদক্ষেপকে স্বাগত এবং কুর্নিশ জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মহল। এর মধ্যেই এবার পরিবেশের ও শক্তি ব্যবহারের স্থায়ী উন্নয়নে অবদানের জন্য স্বীকৃতি পেতে চলেছেন নরেন্দ্র মোদি।

আগামী সপ্তাহে CERAWeek-এর আলোচনা সভা আয়োজিত হতে চলেছে। এই প্রথমবার এই সভা ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হবে, করোনার কারণে। সভা চলবে মার্চের ১ তারিখ থেকে ৫ তারিখ পর্যন্ত। এই সভায় পরিবেশরক্ষা নিয়ে বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তাঁর বক্তব্যে পরিবেশরক্ষায় ভারতের ভূমিকা তিনি তুলে ধরবেন। এই সভাতেই তাঁকে সম্মানিত করা হবে বলে জানা গিয়েছে।

উল্লেখ্য, এদিন ভারতের খেলনা মেলার ভার্চুয়াল উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। পরিবেশের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে, কীভাবে দেশিয় খেলনা তৈরি হচ্ছে, সে বিষয়টি তুলে ধরেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী এদিন এই মেলার উদ্বোধন করে জানিয়েছেন যে, ভারতের খেলনা পুনঃব্যবহারযোগ্য এবং পুরোপুরি পরিবেশবান্ধব। খেলনা তৈরিতে যে রঙ ব্যবহার করা হয়, সেটাও পরিবেশের ক্ষতি করে না। তাই শুধু দেশে নয়, আন্তর্জাতিক বাজারেও ভারতীয় খেলনার চাহিদা ক্রমবর্ধমান।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.