বিজেপির বৈঠকে না গিয়ে এবার বেসুরো রাজীব! সোশ্যাল মিডিয়া বার্তায় বাড়ালেন তৃণমূলে ফেরার জল্পনা

বিজেপির বৈঠকে না গিয়ে এবার বেসুরো রাজীব! সোশ্যাল মিডিয়া বার্তায় বাড়ালেন তৃণমূলে ফেরার জল্পনা
বিজেপির বৈঠকে না গিয়ে এবার বেসুরো রাজীব! সোশ্যাল মিডিয়া বার্তায় বাড়ালেন তৃণমূলে ফেরার জল্পনা

করোনা দ্বিতীয় ধাক্কার পর আজই প্রথম হেস্টিংসে ছিল বিজেপির শীর্ষনেতাদের বৈঠক। সেই বৈঠকে হাজির না থেকেই এবার বেসুরো হলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। ফেসবুকে রাজ্য সরকারের সমালোচনার বিরোধিতা করে বার্তা দিলেন তিনি। ফলে তাঁর তৃণমূলে ফেরার জল্পনা বেশ কিছুটা বেড়ে উঠল। বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে আসা অন্যান্য নেতাদের মতো রাজীবও কি ফের ফিরবেন তৃণমূলে? তাঁর সাম্প্রতিক ফেসবুক পোস্টের ভিত্তিতেই এবার উঠল এই প্রশ্ন।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির হারের পর বেশ কিছু দলত্যাগী নেতাই ফের তৃণমূলে ফেরার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। তাহলে কি সেই তালিকায় দেখা যাবে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামও? তাঁর ফেসবুক পোস্ট থেকে খানিক সে আন্দাজই মিলছে। এই পোস্টের মাধ্যমে তিনি নিজের দল বিজেপিকে পরোক্ষভাবে আক্রমণ করে উগড়ে দেন একরাশ ক্ষোভ। যার মাধ্যমে বেশ স্পষ্ট, দলের নীতি এবং অবস্থানের বিরোধিতাই করছেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী।

এদিন ফেসবুকে কী লেখেন তিনি? রাজীব ফেসবুকে লিখেছেন, “সমালোচনা তো অনেক হলো। মানুষের বিপুল জনসমর্থন নিয়ে আসা নির্বাচিত সরকারের সমালোচনা ও মুখ্যমন্ত্রীর বিরোধিতা করতে গিয়ে কথায় কথায় দিল্লি আর ৩৫৬ ধারার জুজু দেখালে বাংলার মানুষ ভালো ভাবে নেবে না। আমাদের সকলের উচিত রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে কোভিড আর ইয়াস দুর্যোগে বিপর্যস্ত বাংলার মানুষের পাশে থাকা।”

উল্লেখ্য, আজকের হেস্টিংসের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। দলের ভোট পরবর্তী কোনও কর্মসূচিতেই অংশগ্রহণ করছেন না তিনি। এমনকি রাজ্যে যখন ভোট পরবর্তী হিংসার অভিযোগ করে একের পর এক টুইট করেছেন বিজেপি নেতারা তখনও আশ্চর্যজনকভাবে নীরব ছিলেন রাজীব। তবে আজ ফেসবুক বার্তায় কেন্দ্রের বিরুদ্ধে ক্ষোভ জাহির করলেন তিনি। স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন, মুখ্যমন্ত্রীর বিরোধিতা করতে গিয়ে কেন্দ্র যে সমস্ত পদক্ষেপ নিয়েছে, তা একেবারেই ভুল। বাংলার মানুষ এসব মেনে নেবে না।

প্রসঙ্গত, বিধানসভা নির্বাচনের আগেই তৃণমূলের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেই দল ছেড়েছিলেন তৃণমূল নেত্রীর স্নেহস্পদ রাজীব। তবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে কোনও কু কথা বলেননি তিনি। বরং বিধানসভা থেকে বেরিয়ে আসার সময় মুখ্যমন্ত্রীর ছবি সঙ্গে করে নিয়ে বেরোন তিনি। তিনি বলেছিলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তিনি চিরকাল শ্রদ্ধা করবেন। তিনি সর্বদাই তাঁর হৃদয়েই থাকবেন। এরপরই গেরুয়া শিবিরে নাম লেখান রাজীব। তবে আজকের ফেসবুক পোস্ট তাঁর তৃণমূলে ফেরার জল্পনার আগুনের আঁচ যেন আরও কিছুটা বাড়িয়ে দিল। তবে তিনি তৃণমূলে ফিরবেন কি না, তা সময়ই বলবে।