ধারা বজায় রেখে ষষ্ঠ দফাও শুরু বিক্ষিপ্ত অশান্তি দিয়ে

ধারা বজায় রেখে ষষ্ঠ দফাও শুরু বিক্ষিপ্ত অশান্তি দিয়ে
ধারা বজায় রেখে ষষ্ঠ দফাও শুরু বিক্ষিপ্ত অশান্তি দিয়ে

বিক্ষিপ্ত অশান্তি অব্যাহত ষষ্ঠ দফাতেও। এদিন সকালে ভোট শুরু হতেই বীজপুরে অশান্তি শুরু হয়। কাঁচরাপাড়ায় তৃণমূল নেতাকে মারের অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে। ঘটনার জেরে মাথা ফাটল কাঁচরাপাড়া ২০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর উৎপল দাশের যদিও গেরুয়া শিবিরের দাবি, তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরেই এই ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে, ভাটপাড়ায় ভোটার কার্ড থাকা সত্ত্বেও ভোট দিতে পারছেন না বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। তাঁরা জানাচ্ছেন, আধার কার্ড ছাড়া ভোট দিতে দেওয়া হচ্ছে না ভাট পাড়ার ৬১ ও ৩৯ নম্বর বুথে।অন্যদিকে, খড়দার রুইয়ায় ২ বিজেপি এজেন্টকে মারধরের অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূলের।

 স্বরূপনগর মাঝেরপাড়া বাংলানী গ্রাম পঞ্চায়েত ২০২ নম্বর বুথ ইভিএম খারাপ থাকায় দেরি করে শুরু হয় ভোট দান পর্ব। এই বিধানসভা কেন্দ্রের সারাফুল নির্মাণ গ্রাম পঞ্চায়েত কাটাবাগান ১১৮ নম্বর বুথে সিসিটিভি খারাপ। অভিযোগ জমা পড়েছে কমিশনে।

অন্যদিকে, ভোটের আগের রাতেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে আমডাঙা। চলে দেদার বোমাবাজি। গতকাল মাঝরাতে সাধনপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের রাহানা ১ নম্বর এলাকায় রাতভর বোমাবাজি হয়। স্থানীয়দের  দাবি, প্রায় ১০-১২টি বোমা ফাটানো হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় আমডাঙা থানার পুলিশ। কেন্দ্রীয় বাহিনীর টহল শুরু হয়েছে। উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুর লোকসভার সবকটি কেন্দ্রই স্পর্শকাতর। তাই ওই কেন্দ্র গুলিতে বাড়তি নজর রয়েছে নির্বাচন কমিশনের।

এদিকে, উত্তর দমদম বিধানসভা কেন্দ্রের মাইকেল নগর সহ বিভিন্ন এলাকায় টহলদারি পুলিশ এবং কেন্দ্রীয় বাহিনীর। বিভিন্ন বুথে বুথে টহলদারী চালাচ্ছে কোথাও কোন অসুবিধা আছে কি না তা দেখার জন্য পাশাপাশি বুথের 100 মিটারের মধ্যে কোন রকম জামায়াত দেখলে তাদেরকে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.