কোথা থেকে আসবে এত টাকা, রাজ্যের বাজেট নিয়ে প্রশ্ন বিজেপি নেতার

কোথা থেকে আসবে এত টাকা, রাজ্যের বাজেট নিয়ে প্রশ্ন বিজেপি নেতার
image source: posted facebook by @SamikBJP

অন্তর্বর্তী বাজেট নিয়ে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিলেন বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্য। মুখ্যমন্ত্রীর একের পর এক প্রকল্প ঘোষণাকে ‘প্রহসন’ বলে কটাক্ষ করলেন তিনি। অন্যদিকে, ভোট পেতেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এসব করছেন বলে দাবি করলেন বাম নেতা সুজন চক্রবর্তী।

বাজেট প্রসঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করেছেন সুজন চক্রবর্তী। তিনি বলেন, “অযথা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন উনি। এটা কোনও বাজেটই নয়। ৫০ কোটি টাকার উপর ঘাটতি। উনি যা বলছেন সবই পরবর্তী ৫ বছরের জন্য। কিন্তু আপনি থাকবেন ২ মাস। আচমকা ভোটের আগে অনেক কিছু মনে পড়ছে। আগে কেন মনে পড়েনি।” মমতার নেতৃত্বে এই সরকার রাজ্যকে ছাড়খার করেছে বলেও তোপ দাগেন তিনি।

প্রাক্তন বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে পাশে নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করেন বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্য। সেখান থেকেই বাজেট প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীকে তুলোধনা করেন তিনি। বলেন, “বর্তমানে অর্থনৈতিক যা পরিস্থিতি তাতে কীভাবে মুখ্যমন্ত্রী এতগুলি প্রকল্প ঘোষণা করলেন, এত কোটি টাকা বরাদ্দ করলেন জানি না। কোথা থেকে আসবে এত টাকা। সাধারণ মানুষ প্রকল্পের প্রহসন প্রত্যাখ্যান করবে বলেই আমার বিশ্বাস।

এতদিন দুয়ারে সরকারে স্বাস্থ্যসাথী কার্ডের নামে মানুষকে বিভ্রান্ত করেছে সরকার। এই অভিযোগ করে শমীকবাবু বলেন, “বলা হচ্ছে ১০ কোটি মানুষ ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত পরিষেবা পাবে, অথচ বরাদ্দ সামান্য কিছু টাকা।” তাঁর কথায়, অশোকনগরের তেল উত্তোলনে কর্মসংস্থান থেকে শুরু করে দেউচা-পাচামি সবকিছুই কেন্দ্রের, কিন্তু রাজ্য নিয়োগের স্বপ্ন দেখাচ্ছে। যা ঠিক নয়।

এদিন পার্শ্বশিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির প্রস্তাব প্রসঙ্গেও মুখ্যমন্ত্রীকে একহাত নেন শমীকবাবু। বলেন, “বহুদিন ধরে পার্শ্বশিক্ষকরা আন্দোলন করছেন। প্রায় একবছর ধরে প্রতিদিন বিকাশ ভবনের সামনে দেখছি ওনারা অবস্থান করছেন। আজ এতদিন পর মুখ্যমন্ত্রীর ওদের কথা মনে পড়ল।”

আরো পড়ুনঃ   রাজ্য সফর বাতিল, অনলাইনে বৈঠক সারতে পারেন উপ নির্বাচন কমিশনার