সামনেই সরস্বতী পুজো! দেবী সরস্বতী আসলে কে তা জানেন কী?

সামনেই সরস্বতী পুজো! দেবী সরস্বতী আসলে কে তা জানেন কী?
সামনেই সরস্বতী পুজো! দেবী সরস্বতী আসলে কে তা জানেন কী?

আর কয়েকদিন পরই সরস্বতী পুজো। স্কুল-কলেজ থেকে অফিস-কাছারি এমনকি পাড়ার ক্লাবেও, দেবী-বন্দনায় সামিল হবেন প্রত্যেক রাজ্যবাসী৷ তিনি বিদ্যা এবং জ্ঞানের দেবী। জ্ঞান অর্জনের আশায় তাঁর কাছে হাতে-খড়ি দেবে বহু শিশু। অঞ্জলি দেবেন পড়ুয়া থেকে বয়স্ক প্রত্যেকেই। কিন্তু এ কথা কি কারোর জানা রয়েছে? দেবী সরস্বতী আদতে কে ছিলেন?

সরস্বতীকে সাধারণত আমরা শিব-পার্বতীর কন্যা হিসাবেই চিনি। যিনি সম্পর্কে লক্ষ্মীর বোন। গণেশ এবং কার্তিকের দিদি। কিন্তু শাস্ত্রীয় মতে এর নাকি কোনও ভিত্তিই নেই। আদতে এসবই মনগড়া কাহিনী। এগুলি সবই নাকি মিথ! তাহলে আসল সত্য কোনটি?

ঋগবেদ অনুযায়ী, দেবী সরস্বতী ‘ভূ: ভুব: স্ব:’-এই জ্ঞানময়ী ত্রিমূর্তি রূপে সর্বত্র বিরাজময়ী। সারা বিশ্বে জ্ঞানের আলো প্রকাশিত হয় তাঁরই মহিমায়। তাঁর জ্ঞানের আলোর স্পর্শে অন্ধকারের ন্যায় অজ্ঞানতা দূর হয়। তিনি সর্বদা আলোকময়ী মা। তিনি সত্ত্বগুণময়ী, অনন্ত জ্ঞানী ঈশ্বরের বাকশক্তির প্রতীক, দেবী সারদা।

আবার অন্য মতে, ঈশ্বরের সৃষ্টিকর্তা ব্রহ্মার নারী শক্তির নামই সরস্বতী। অর্থাৎ সরস্বতী আদতে ব্রহ্মাই। আর ব্রহ্মা যেহেতু পরমব্রহ্ম বা ঈশ্বর, তাই সরস্বতীও পরমেশ্বর রূপে বিরাজময়ী। দেব-দেবীদের মধ্যে কোনও ছোট-বড় ভেদাভেদ নেই। তাই সরস্বতীকে ছোট দেবী বলা হলেও আদতে তিনি ঈশ্বরেরই এক রূপ। স্বয়ং ব্রহ্মাই স্ত্রীরূপে হয়ে ওঠেন দেবী সরস্বতী।

হিন্দু ধর্ম ছাড়াও তান্ত্রিক বৌদ্ধ ধর্মেও উল্লেখ রয়েছে দেবী সরস্বতীর। হিন্দু ধর্মের মতোই বৌদ্ধ সাধনমালায় সরস্বতী দ্বিভুজা। তবে তাঁর চার রূপ- মহাসরস্বতী, বজ্রবীণা সরস্বতী বজ্রসারদা ও আর্যা সরস্বতী। মহাসরস্বতী শ্বেত বসনধারিনী, সাদা পদ্মের ওপর আসীন। তাঁর ডান হাতে বরদমুদ্রা এবং বাম হাতে সলাল শ্বেত পদ্ম। আর্যা সরস্বতী রূপী দেবী শুভ্রবর্ণা এবং যৌবনা। তাঁর ডানহাতে রক্তপদ্ম ও বাম হাতে সনাল পদ্মের সঙ্গে প্রজ্ঞাপারমিতা পুস্তক রয়েছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.