রাম মন্দির নির্মাণে সময় লাগবে আড়াই বছর, খরচ হবে প্রায় ১০০ কোটি টাকা

Image Source: Google

বিশেষ প্রতিবেদন, নিউ দিল্লীঃ কাল রায় বেরিয়েছে অযোধ্যা মামলার। অযোধ্যার মাটিতেই তৈরি হবে রাম মন্দির এমনটাই জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। রায় ঘোষণার পরেই সেই রাম মন্দির তৈরি নিয়ে শুরু হয়ে গেছে প্রাথমিক তোরজোড়। গুজরাটের বাসিন্দা চন্দ্রকান্ত সোমপুরা-র পরিবার কয়েক দশক ধরে এই মন্দিরের ডিজাইন করছে। ওনার পরিবারই গুজরাটের বিখ্যাত সোমনাথ মন্দিরের ডিজাইন করেছিল।

তিনি জানিয়েছেন এই রাম মন্দির যদি ২ হাজার কারিগর দিয়ে তৈরি করানো শুরু হয় তাহলে সময় লাগবে আড়াই বছর, আর তাতে ব্যয় হবে কম বেশি ১০০ কোটি টাকা। চন্দ্রকান্ত জানিয়েছেন, ছয় মাসে ছয় রকম ডিজাইন নিয়ে কাজ করে রাম মন্দিরে মডেল তৈরি করেছিলেন তিনি। রাম মন্দিরের জন্য প্রায় ৫০ শতাংশ কাজ সম্পূর্ণ হয়ে গেছে, মন্দিরের গম্বুজের নকশাও হয়ে গেছে। গোটা মন্দিরে পাথরের কাজ হবে। পাথর দিয়ে গোটা মন্দিরকে মজবুত করা হবে। মুখ্য মন্দিরে সীতা মাতা, লক্ষণ, ভরত, শত্রুঘ্ন এবং ভগবান গণেশের প্রতিমা হবে। এছাড়াও ভব্য ভগবান রামের মূর্তি বানানো হবে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী গম্বুজের আকার হবে ১৫০ ফুট চওড়া, ২৭০ ফুট লম্বা আর ২৭০ ফুট উঁচু। রাম মন্দির নির্মাণের জন্য লোহার ব্যবহার হবেনা। মন্দিরে সিংহ দ্বার, নৃত্য মণ্ডপ, রঙ্গ মণ্ডপ, গর্ভ গৃহ এবং প্রবেশ দ্বার হবে। মন্দিরের ভিতরে মর্মর প্রস্তরখণ্ড দিয়ে সাজানো হবে। বাকি পাথর ভরতপুর থেকে আনা হবে। মন্দিরের আধার থেকে শিখর পর্যন্ত চারটি কোণ থাকবে, আর গর্ভ গৃহে আটটি কোণ হবে। মডেল দুইতলার হবে। ভূতলে মন্দির, আর উপরের তলে দরবার হবে। মন্দিরে ২২১ টি স্তম্ভ হবে, প্রতিটি স্তম্ভে দেবদেবীর ১২ টি করে আকৃতি বানানো হবে।

আরও পড়ুনঃ  ভয়াবহ অগ্নিসংযোগ হলদিয়া পেট্রোকেমিক্যালসে, কর্মী মৃত্যুর আশঙ্কা

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.