“দল ছাড়ার পরেও নিয়মিত হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ ছিল সুব্রতদার সঙ্গে”! স্মৃতিমেদুর শুভেন্দু

"দল ছাড়ার পরেও নিয়মিত হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ ছিল সুব্রতদার সঙ্গে"! স্মৃতিমেদুর শুভেন্দু

পঞ্চায়েতমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের যে সৌজন্যবোধ ছিল তা বিরল। সদ্য প্রয়াত মন্ত্রীর স্মৃতি চারণা করতে গিয়ে এমনটাই জানালেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। একইসঙ্গে তিনি জানালেন, সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের স্মরণসভা হলে বিজেপি বিধায়করা বিধানসভায় উপস্থিত থাকবেন।

সুব্রত মুখোপাধ্যায় এর মৃত্যুর পর শাসক ও বিরোধী সব মহলে তার সৌজন্যবোধ নিয়ে প্রশংসা করেছেন। এমনকি বিরোধী দল হওয়া সত্ত্বেও তিনি যেভাবে সকলের সঙ্গে মিশতে তা নজিরবিহীন বলেই জানিয়েছেন বাম কংগ্রেস থেকে শুরু করে বিজেপিও। সেইরকমই এদিন তাকে শ্রদ্ধা জানাতে এসে স্মৃতিমেদুর হয়ে পড়েন এককালীন একই দলের সহযোদ্ধা’ তথা অধুনা রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী।

শুভেন্দু অধিকারী এদিন বলেন, “পঞ্চায়েতমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে পারিবারিক সম্পর্ক ছিল। অধিকারী বাড়িতে শতাধিকবার আতিথেয়তা গ্রহণ করেছেন তিনি। সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের স্মরণসভা হলে বিজেপি বিধায়করা বিধানসভায় উপস্থিত থাকবেন।” তাঁর কথায়, “রাজনৈতিক সৌজন্যবোধ ছিল সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের। বর্তমান শাসক দলের সৌজন্যতা দেখানোর ক্ষেত্রে আমার মনে হয় আর হাতে গোনা কয়েকজন থাকলো।”

স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে শুভেন্দু অধিকারী আরো জানান, “যখন ২০০৫ সালে তৃণমূল ছেড়ে কংগ্রেসে চলে গিয়েছিলেন সুব্রতবাবু তখনো আমার এবং আমার বাবার সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল তার। এমনকি বিগত এক বছর ধরে যখন আমি বিজেপিতে রয়েছি তখনও তার সঙ্গে স্বাভাবিকভাবেই যোগাযোগ ছিল আমার। বিজেপিতে যাওয়ার আগে স্বাভাবিক ভাবে ফোনে কথা হতো কিন্তু দল পরিবর্তন করার পর আমাকে বলতেন শুধু হোয়াৎসঅ্যাপ এ কথা বলতে”।